kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭। ৭ আগস্ট  ২০২০। ১৬ জিলহজ ১৪৪১

হ্যানার প্রত্যাবর্তন

২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



 হ্যানার প্রত্যাবর্তন

২০১১ সালে হ্যানা চলচ্চিত্রটি মুক্তির পর দারুণ আলোচিত হয়েছিল। ভক্তদের অপেক্ষা ছিল সিক্যুয়ালের। কিন্তু সে পথে পা না বাড়িয়ে নতুন করে ওয়েবে আসে হ্যানা। ৩ জুলাই অ্যামাজন প্রাইমে সিরিজটির দ্বিতীয় কিস্তির মুক্তি উপলক্ষে লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

অ্যামাজন প্রাইম আবারও নিয়ে আসছে জনপ্রিয় সিরিজ ‘হ্যানা’। স্পাই থ্রিলার ঘরানার অ্যাকশনে ভরপুর সিরিজটির দ্বিতীয় কিস্তি দর্শকের সামনে উন্মুক্ত হচ্ছে     ৩ জুলাই।

সিআইএর ‘সুপার সোলজার’ তৈরির গোপন মিশনের ফসল হ্যানা। একপর্যায়ে সিআইএর কাছ থেকে পালিয়ে আসে সে। এরপর বাবার ‘নিখুঁত পরিচর্যা’য় হ্যানা পরিণত হয় দুর্ধর্ষ এক খুনিতে। ইউরোপজুড়ে নানা মিশনে একের পর এক অংশ নেয় ১৫ বছর বয়সী কিশোরী। তবে দ্রুতই খোঁজ পেয়ে তার পিছু নেয় সিআইএ। প্রথম সিজন শেষে হ্যানা আবিষ্কার করে সুপার সোলজার সে একাই নয়, তার মতো আরো অনেকেই আছে। বাকিদেরও বন্দিদশা থেকে মুক্ত করার প্রায় অসম্ভব যুদ্ধটাই এ সিজনের প্রতিপাদ্য।

নামভূমিকায় আছেন এসমে ক্রিড মাইলস। অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যাবে মিরেল এনস, জোয়েল কিন্নাম্যানের মতো অভিনেতাদের।

জো রাইটের পরিচালনায় ২০১১ সালে মুক্তি পায় ‘হ্যানা’ চলচ্চিত্রটি। বক্স অফিসে মোটামুটি সাফল্য পেলেও সময়ের সঙ্গে চরিত্রটির বড় একটি ভক্তগোষ্ঠীর সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে হ্যানা চরিত্রে সার্শা রোনানের অনবদ্য অভিনয় ভক্তদের হৃদয়ে পাকাপোক্ত স্থান দখল করে ফেলে। এর পর থেকে সবাই অপেক্ষায় ছিল কবে আসবে দ্বিতীয় কিস্তি। ২০১৭ সালে অ্যামাজন ঘোষণা দেয়, সিক্যুয়াল নয়, বরং নতুনভাবে নির্মিত হবে ‘হ্যানা’। সিরিজটি নির্মাণের পেছনে ছিলেন ডেভিড ফার। চলচ্চিত্রটির সঙ্গে তুলনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মূল চরিত্র নারী হলেও চলচ্চিত্রটি ছিল বেশ পুরুষকেন্দ্রিক। কিন্তু সিরিজে নারীশক্তির বিকাশই দেখাতে চেয়েছি।’

সিরিজটির প্রথম কিস্তি মুক্তির সময়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল এসমে ক্রিড মাইলস ও সার্শা রোনানের মধ্যে তুলনা। অনেক সমালোচকই সন্দিহান ছিলেন এসমের যোগ্যতা নিয়ে। তবে অনবদ্য অভিনয়ের মাধ্যমে সমালোচকদের মুখে কুলুপ এঁটে দিয়েছিলেন তিনি। সার্শার সঙ্গে তুলনা প্রসঙ্গে এসমে বলেন, ‘সে তো এই বয়সেই কিংবদন্তিতে পরিণত হয়েছে। তুলনা নয়, বরং হ্যানা চরিত্রের মাধ্যমে তার প্রতি সম্মান জানাতে চেয়েছি আমি।’ দ্বিতীয় কিস্তির ব্যাপারে এসমে বলেন, ‘এবার হ্যানাকে আরো অনেক জটিল পথ পাড়ি দিতে হবে। অনেক সময়ই পর্দায় হ্যানার সংগ্রামের কথা মনে করে নিজেরই দম বন্ধ হয়ে আসত।’  

সিরিজটিতে চমক হিসেবে রয়েছেন ডারমট মালরনি। সাধারণত রোমান্টিক কমেডিতে অভিনয়ে অভ্যস্ত এই তারকার জন্য সিরিজটি এক নতুন অভিজ্ঞতা, ‘একদল তরুণের সঙ্গে অভিনয়টা বেশ ভালোই উপভোগ করেছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা