kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৪ জুন ২০২০। ১১ শাওয়াল ১৪৪১

বিশ্বসংগীত

হ্যারিকীর্তি

৯ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হ্যারিকীর্তি

ব্রিটিশ ব্যান্ড ‘ওয়ান ডিরেকশন’-এর গায়ক হ্যারি স্টাইলস একক ক্যারিয়ারেও সফল। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন নাসরিন হকজনপ্রিয় ব্রিটিশ রিয়ালিটি শো ‘দ্য এক্স ফ্যাক্টর’ থেকে অনেক শিল্পীই উঠে এসেছেন, যাঁদের মধ্যে আছেন হ্যারি স্টাইলসও। তাঁর ব্যান্ড ‘ওয়ান ডিরেকশন’। ২০১০ সালে গঠনের পর থেকেই ব্যাপক জনপ্রিয় হয় ব্যান্ডটি। তবে ব্যান্ডের আরেক তারকা জায়ান মালিকের জনপ্রিয়তার আড়ালে অনেকটা ঢাকা পড়ে ছিলেন হ্যারি। জায়ান ব্যান্ড থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর হ্যারির দিকে নজর যায় সবার।

২০১৭ সালে হ্যারির প্রথম একক সিঙ্গল ‘সাইন অব দ্য টাইমস’ মুক্তির পরই আলোচিত হয়। সফট রক ধাঁচের গানটি গোটা দশেক পুরস্কারেও মনোনীত হয়েছিল। পরে গানটি স্থান পায় হ্যারির প্রথম একক অ্যালবামেও। গায়কের নিজের নামে মুক্তি পাওয়া অ্যালবামটি যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, পোলান্ড ও মেক্সিকোতে প্লাটিনাম এবং যুক্তরাজ্যসহ আরো ৯ দেশে গোল্ড স্বীকৃতি পায়।

‘ফাইন লাইন’ হ্যারির দ্বিতীয় অ্যালবাম। গেল বছরের ডিসেম্বরে মুক্তি পাওয়া অ্যালবামটিও প্রথমটির মতো সাফল্য পায়। ইউকে অ্যালবাম চার্ট, বিলবোর্ড টপ চার্টে এখনো সেরা দশেই আছে অ্যালবামটি। এই অ্যালবামের অন্যতম হিট গান ‘লাইটস আপ’, ‘ওয়াটারমেলন সুগার’, ‘অ্যাডোর ইউ’ ও ‘ফলিং’। এর মধ্যে ‘অ্যাডোর ইউ’ যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও কানাডায় সেরা দশে ছিল। হ্যারি মূলত রক, পপ, ফোক ঘরানার গান করেন। তাঁর গানের মূল প্রেরণা গেল ৫০ বছরের রকসংগীত।

গান ছাড়া অভিনয়ও করেছেন হ্যারি। ক্রিস্টোফার নোলানের ‘ডানকার্ক’ দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তাঁর। ছবিতে তিনি ব্রিটিশ সৈনিক অ্যালেক্সের চরিত্র করেন।

দ্বিতীয় অ্যালবামের সাফল্য অবশ্য খুব একটা উপভোগ করতে পারছেন না হ্যারি। করোনার কারণে আটকে গেছেন যুক্তরাষ্ট্রে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হ্যারি ভক্তদের জানিয়েছেন, খারাপ সময়ের পর সারা দুনিয়ায় ঘুরে বেড়াবেন গান নিয়ে, ভক্তদের আরো কাছাকাছি যাবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা