kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

গানের অলরাউন্ডার কাজী নওরীন

একই সঙ্গে গানে কণ্ঠ দেন, লেখেন, সুর ও সংগীতায়োজন করেন কাজী নওরীন। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন মীর রাকিব হাসান

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গানের অলরাউন্ডার কাজী নওরীন

বাংলাদেশ বার অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে গানের অনুষ্ঠান ছিল ২৩ ফেব্রুয়ারি। সেখানে গেয়েছেন নওরীন। অনুষ্ঠান শেষ করে বাসায় যেতে যেতে রাত ১২টা। আর সে সময় নওরীন কিনা ফিরেছেন নিজে বাইক চালিয়ে। গায়িকার কত্ত গুণ! গাওয়ার পাশাপাশি লেখেন, সুর-সংগীতায়োজন করেন। আইন নিয়ে পড়ছেন। বাইক চালিয়েও নাম করেছেন। নওরীন বলেন, ‘ছয়-সাত বছর আগে গাড়ি কিনেছিলাম। কিন্তু যখন কোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করি, তখন জ্যামে বসে থাকতে থাকতে মনে হলো, আমার বাইক চালানো উচিত। একে একে পাঁচটি বাইক বদলিয়েছি। এখন চালাচ্ছি ইয়ামাহা ফেজার। আমার বাইকে আমার বাবাও ওঠেন। বাইক চালানোর কারণে অনেক পরিচিতিও পেয়েছি।’ লেডি বাইকার হিসেবে নওরীনকে অনেকে চেনেন। নারীদের বাইক চালানোতে উত্সাহ দিতে নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে নিয়মিতই ব্লগ করেন নওরীন। তবে তাঁর স্বপ্ন অ্যাডভোকেট হওয়ার। অ্যাডভোকেট হতে বার কাউন্সিলে তাঁর ফাইনাল পরীক্ষা ২৮ ফেব্রুয়ারি।

ছোটবেলা থেকেই গানের সঙ্গে আছেন নওরীন। হাতেখড়ি বাবা কাওয়ালি গায়ক কাজী মাশুক খাদেমের কাছে। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু সৃষ্টি ললিতকলা একডেমি থেকে। সেখানে পাঁচ বছর ক্লাসিক্যালের ওপর তালিম নেন। তারপর নেন উচ্চাঙ্গসংগীতের তালিম। ২০১১-১২ সালে নজরুল একাডেমি থেকে দুই বছরের একটা কোর্স করেন। সেখান থেকেই উচ্চতর গবেষণা শেষ করেন। বলা যায়, বেশ পোক্ত হয়েই গানের জগতে এসেছেন। “নিজে নিজে গান লিখি, সুর করি ২০০৮ সাল থেকে। ২০০৯ সালে প্রকাশ পায় আমার প্রথম একক অ্যালবাম ‘এই ছেলে’। অ্যালবামটির সব গানের কথা, সুর ও সংগীতায়োজন আমারই করা”—বলছিলেন নওরীন। তার আগে এনটিভির ‘আমারও গাইতে ইচ্ছে হলো’ অনুষ্ঠানে নিজের প্রথম গান করেন। এরপর দীপ্ত ফিচারিং ‘গোলকধাঁধা’ অ্যালবামে ‘আমি পথে একলা হাঁটি’ গেয়ে অনেকের প্রশংসা পেয়েছিলেন।

২০১২ সালে বের হয় তাঁর দ্বিতীয় একক ‘ঝিরিঝিরি বৃষ্টি’, ২০১৪ সালে আসে তৃতীয় একক ‘মায়াবী বাঁধন’। এই দুটি অ্যালবামেরও সব গান তাঁর নিজের বানানো। পাশাপাশি মনির খান, কাজী শুভসহ অনেকের সঙ্গে দ্বৈত গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। চলচ্চিত্রের তিনটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন আহমেদ হুমায়ূনের সুরে।

আইনের পড়াশোনা আর গান—দুটি একসঙ্গে কিভাবে সামলান? “গান তো সারা জীবনই আমার সঙ্গে ছিল। এমনও হয়েছে, এসএসসি পরীক্ষার আগের দিন এনটিভিতে লাইভ অনুষ্ঠান করেছি। সেই অনুষ্ঠানে [হিপহিপ হুর রে] উপস্থাপিকা নাবিলা আপু বলছিলেন, ‘সে একজন এসএসসি পরীক্ষার্থী। আগামীকাল তার পরীক্ষা!’ আমি কিন্তু স্টেজ শো করেও এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছি, ভালো ফলও এসেছে।”

বর্তমানে প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো স্টেজে গাইছেন নওরীন। নতুন নতুন গান বানাচ্ছেন নিজের স্টুডিওতে বসে। মার্চে তাঁর সুরে মমতাজ দুটি গানে কণ্ঠ দেবেন বলে জানিয়েছেন। প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে তাঁর কথা, সুর ও সংগীতায়োজনে কাজী শুভর তিনটি গান। ঝিলিকের জন্যও একটি গান বানাচ্ছেন। বর্তমান সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের স্ত্রী নাহার দিলশাদ কাকলির জন্যও গান তৈরি করছেন। কথার শেষ ভাগে নওরীন বলেন, ‘নারী সংগীত পরিচালক হওয়ায় আমাকে নানা প্রতিবন্ধকতাও মোকাবেলা করতে হয়েছে। সত্যি বলতে, এই জগতে যতক্ষণ না আপনি জনপ্রিয় হচ্ছেন, ততক্ষণ পর্যন্ত সবাই চাপা দিয়ে রাখার চেষ্টা করে। জনপ্রিয় হয়ে গেলে তখন তাঁর পাশে অনেকেই এসে দাঁড়ায়। আমি কিন্তু হারিয়ে যেতে বা শখের বশে সংগীতে আসিনি। নিয়মিতই কাজ করে যেতে চাই।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা