kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

হ্যালো গ্যাব্রিয়েলা

গ্যাব্রিয়েলা উইলসন নিজেকে পরিচয় দেন এইচইআর [হার] বলে। ২২ বছর বয়সী এই গায়িকাকে নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হ্যালো গ্যাব্রিয়েলা

ঠিক দশ বছর আগে ‘রেডিও ডিজনি’র ‘নেক্সট বিগ থিং’-এ অংশ নিয়েছিলেন। তখনই ধারণা করা হয়েছিল এক দশক পর গ্যাব্রিয়েলা উইলসন সত্যিই ‘বড় কিছু হবেন’। ঠিক এর দুই বছর পর মাত্র ১৪ বছর বয়সে তিনি আরসিএ রেকর্ডসের সঙ্গে চুক্তি সেরে ফেলেন। প্রকাশ পায় তাঁর সিঙ্গেল ‘সামথিং টু প্রুভ’। এরপর দীর্ঘ বিরতি। বলা যায় বড় কিছুর জন্যই তৈরি হচ্ছিলেন। ২০১৭-তে প্রকাশ পায় প্রথম এক্সটেন্ডেড প্লে ‘এইচইআর ভলিউম-১’। তখন থেকেই গ্যাব্রিয়েলা নিজেকে এইচইআর বলে পরিচয় দেন। এ বছরই রিহানা তরুণ এই গায়িকার সঙ্গে গান করার একটি ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ করেন। যা ৫০ লাখেরও বেশিবার দেখা হয়। মূলত এই ভিডিওর কল্যাণেই রাতারাতি এইচইআরের নাম জানে মানুষ। ২০১৭ সালেই ‘ফোর্বস’ ম্যাগাজিন তাঁকে বছরের সেরা পাঁচ উদীয়মান ‘রিদম অ্যান্ড ব্লুজ’ শিল্পী হিসেবে ঘোষণা দেয়। একই বছর নিজের গানের সংকলন নিয়ে ‘এইচইআর’ নামে অ্যালবাম প্রকাশ করেন। যা দিয়ে ৬১তম গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডে চার-চারটি মনোনয়ন পেয়ে সবাইকে চমকে দেন। পরে ‘বেস্ট আর অ্যান্ড বি অ্যালবাম’ ও ‘বেস্ট আর অ্যান্ড বি পারফরমেন্স’ ক্যাটাগরিতে পুরস্কারও জেতেন শিল্পী। মাত্র ২১ বছর বয়সে দুই গ্র্যামি জয় তাঁর আত্মবিশ্বাস অনেকটাই বেড়ে যায়। এ বছরের ৩০ আগস্ট প্রকাশ পেয়েছে তাঁর আরেকটি অ্যালবাম ‘আই ইউজড টু নো ইউ’। অ্যালবামটি বিলবোর্ড হট ২০০ বা অন্য মিউজিক চার্টগুলোতে বাজিমাত করতে পারেনি। ব্যাপকভাবে ব্যবসাফলও হয়নি। কিন্তু সংগীত সমালোচকরা ঠিকই তাঁর গানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এবারও গ্র্যামিতে ‘অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার’ ক্যাটাগরিতে মনোনয়ন পেয়েছেন তিনি। ৬২তম গ্র্যামির মনোনয়নে নারীদের জয়জয়কার। টেইলর সুইফট, আরিয়ানা গ্রান্দেকে পেছনে ফেলে আনকোরা লিজো সর্বোচ্চ আট শাখায় মনোনয়ন পেয়েছেন। মনে করা হচ্ছে, এইচইআরও বাজিমাত করবে। গায়িকা অবশ্য এখনই এসব নিয়ে মাথা ঘামাতে চান না। আপাতত কাজেই মন দিতে চান। গানের ক্ষেত্রে এইচইআর আদর্শ মনে করেন রিহানাকে। অনেকে এইচইআর-কে রিহানার ‘কপি’ও বলে থাকে। তবে তিনি মনে করেন, গানের ক্ষেত্রে রিহানার প্রভাব এতটাই ব্যাপক যে তাঁর থেকে যে কেউ প্রেরণা নিতে পারে।

অনেকে এইচইআর-কে রিহানার কপিও বলে থাকে। তবে তিনি মনে করেন গানের ক্ষেত্রে রিহানার প্রভাব এতটাই ব্যাপক যে তার থেকে যে কেউ প্রেরণা নিতে পারে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা