kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

হঠাত্ অভিনেতা

‘ব্ল্যাক প্যান্থার’-এর কল্যাণে বিশ্বজুড়ে পরিচিতি পেলেও আদতে অভিনেতা হতেই চাননি চ্যাডউইক বসম্যান! ‘২১ ব্রিজেস’ মুক্তি উপলক্ষে অভিনেতাকে নিয়ে লিখেছেন মামুনুর রশিদ

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হঠাত্ অভিনেতা

চেয়েছিলেন হবেন লেখক-পরিচালক। অভিনয় নিয়ে পড়া শুরু করেছিলেন অভিনেতাদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন সহজ হবে বলে। কিন্তু কপালের ফেরে নিজেই হয়ে গেলেন অভিনেতা! আর অভিনেতা হয়ে খ্যাতিটাও জুটেছে দারুণ। ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’-এর কল্যাণে চ্যাডউইক বসম্যান এখন সারা দুনিয়ায় পরিচিত নাম। চ্যাডউইক বড় হয়েছেন আফ্রিকান আমেরিকান দম্পতি ক্যারোলিন আর লেরয় বসম্যানের ঘরে, দক্ষিণ ক্যারোলিনা শহরে। আদিপুরুষরা ছিল সিয়েরা লিওনের। জুনিয়র স্কুলে থাকাকালীনই মঞ্চনাটক লেখায় হাতেখড়ি। এক সহপাঠী গুলি খেয়ে মারা যাওয়ার পরই সে বিষয় নিয়ে নাটক ‘ক্রসরোডস’ মঞ্চায়ন করেন। হাওয়ার্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ২০০০ সালে পরিচালনার ওপর স্নাতক করেন। লন্ডনে ‘ব্রিটিশ আমেরিকান ড্রামা একাডেমি’র প্রগ্রাম শেষে আমেরিকা ফিরেই হঠাত্ অভিনয়ের সিদ্ধান্ত নেন। শুরু করেছিলেন টেলিভিশনে। ২০০৩ সালে ‘থার্ড ওয়াচ’ টিভি সিরিজের একটি বিশেষ পর্বে অভিনয় করেন। ‘ল্য অ্যান্ড অর্ডার’, ‘ই.আর’ এসব সিরিজের বেশ কিছু পর্বে কাজ করেন। অভিনয়ের পাশাপাশি মঞ্চ নাটক লেখাটাও চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তাঁর লেখা একটি নাটক ২০০৬ সালে জোসেফ জেফারসন অ্যাওয়ার্ডে মনোনীতও হয়েছিল। চ্যাডউইকের সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগটা পেয়ে যান ‘দ্য এক্সপ্রেস’ দিয়ে। তবে সবচেয়ে পরিচিতি পেয়েছেন বিভিন্ন বাস্তব চরিত্রে রূপদান করে। বেসবল খেলোয়াড় জ্যাকি রবিনসনের চরিত্র করেছিলেন ২০১৩ সালের ‘৪২’ সিনেমায়। চরিত্রটির জন্য অডিশন দেওয়া ২৫ জনের মধ্যে সুযোগটি শেষ পর্যন্ত তাঁর কাছেই আসে। ‘মার্শাল’ সিনেমায় করেছিলেন উকিল থারগুড মার্শালের চরিত্র। ২০১৬ সালে ক্যাপ্টেন আমেরিকা সিভিল ওয়ার দিয়েই মার্ভেলের সঙ্গে পাঁচ সিনেমার জন্য চুক্তিবদ্ধ হন, টি শালা ওরফে ব্ল্যাক প্যান্থার চরিত্রের জন্য। এ চরিত্রের একক ছবি ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’, যেটি গত বছর বক্স অফিসে ঝড় তোলার পাশাপাশি অস্কারে শ্রেষ্ঠ সিনেমার মনোনয়ন পেয়ে নতুন এক রেকর্ড গড়েছে, কমিকবুক সিনেমা হয়ে। এ বছর ‘অ্যাভেঞ্জার্স : অ্যান্ডগেম’-এর পর চ্যাডউইকের নতুন সিনেমা ‘২১ ব্রিজেস’ আসছে আগামীকাল। অ্যাকশন থ্রিলার ঘরানার এই সিনেমায় তাঁর চরিত্রটি পুলিশ অফিসারের। যিনি পুলিশের খুনের সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজন দুই ব্যক্তিকে খুঁজে বের করবেন। ‘অ্যাভেঞ্জার্স : ইনফিনিটি ওয়ার’ ও ‘অ্যান্ডগেম’-এর পরিচালকদ্বয় রুসো ব্রাদার্স এই সিনেমায় প্রযোজকের ভূমিকায়। সিনেমার তিন অভিনেতা চ্যাডউইক বসমস্যান, জে কে সিমন্স, টেইলর কিশ—যাঁরা প্রত্যেকেই মার্ভেলের সিনেমায় আগে কাজ করেছেন। সব মিলিয়ে এই ছবিতে মার্ভেলের ছোটখাটো মিলনমেলা বলা যায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা