kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

পর্দার পেছন থেকে সামনে

প্রায় ৫০০ গানের গীতিকবি শহীদুল্লাহ ফরায়জী। সম্প্রতি একটি মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের মডেল হয়ে এসেছেন পর্দার সামনে। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন। ছবি তুলেছেন সাইফুল রাজু

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পর্দার

পেছন থেকে সামনে

পর্দার সামনে

২০১০ সালে গ্রামীণফোন ‘দুনিয়া কাঁপানো ৩০ মিনিট’ শিরোনামে একটি বিজ্ঞাপন বানায়। সেখানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সামনে কয়েক সেকেন্ডের একটি দৃশ্যে দেখা যায় শহীদুল্লাহ ফরায়জীকে। প্রায় ৯ বছর পর একই প্রতিষ্ঠানের পূর্ণাঙ্গ একটি বিজ্ঞাপনচিত্রে অংশ নিয়েছেন দেশের নন্দিত এই গীতিকবি। যাতে গায়ক, সংগীত পরিচালক প্রীতম হাসানের সঙ্গে অভিনয় করেছেন তিনি। বিভিন্ন টিভি চ্যানেল আর ফেসবুকে বিজ্ঞাপনচিত্রটি প্রচারের পর থেকেই প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন ফরায়জী। পর্দার পেছনের মানুষকে সামনে পেয়ে আনন্দিত তাঁর ভক্তরাও। ফরায়জী বলেন, ‘বিজ্ঞাপনচিত্রটির গল্পে বইয়ের গুরুত্ব ও মর্যাদা তুলে ধরা হয়েছে। ৮ থেকে ১১ অক্টোবর পিরোজপুরের স্বরূপকাঠির আমড়া বাগান ও কাঁঠাল বাগানে শুটিং হয়েছে। এর শুটিংয়ে অংশ নেওয়ার জন্য জীবনে প্রথম বরিশাল গিয়েছি। শুটিংয়ের পর কাউকে জানাইনি। মনে হয়েছিল আমার ভক্ত-শুভাকাঙ্ক্ষীরা কাজটি পছন্দ করবে না। কিন্তু প্রচারের পর থেকে শত শত ফোন পাচ্ছি। এটা অন্য রকম এক ভালো লাগার অনুভূতি।’

 

সম্মাননা

কয়েক দিন আগেই গীতিকবি হিসেবে ‘হিউম্যান রাইটস অ্যাওয়ার্ড’-এ আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন ফরায়জী। তার রেশ কাটতে না কাটতেই পেতে যাচ্ছেন ‘শিল্পী বশীর আহমেদ পদক’। ১৭ নভেম্বর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে প্রথমবারের মতো দেওয়া হবে এই পদক। এ প্রসঙ্গে ফরায়জী বলেন, ‘যেকোনো পুরস্কারই অনুপ্রেরণাদায়ক। তবে বশীর আহমেদের মতো এমন উচ্চতম একজন শিল্পীর নামে দেওয়া পদক পাচ্ছি ভেবে খুব সম্মানিত বোধ করছি।’

 

নতুন গান

এখন তুলনামূলক কম গান লিখছেন ময়মনসিংহে জন্ম নেওয়া এই গানের মানুষ। চলতি বছর তাঁর লেখা মাত্র দুটি গান প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে ‘অবতার’ চলচ্চিত্রে ন্যানিস গেয়েছেন ‘যারে দেখে মন স্বপ্ন কিনে ফেলে’। সুর ও সংগীতায়োজনে কিশোর দাশ। অন্যটি হলো কাজী শুভ ও স্বরলিপির ‘ভালোবাসতে বাসতে মানুষ নাকি মানুষ হয়’। সুর ও সংগীতায়োজনে অমিত কর। বর্তমানে ‘রজকিনী’ নামে একটি চলচ্চিত্রের জন্য লিখছেন তিনি।

 

৫০০ গান

শহীদুল্লাহ ফরায়জীর লেখা গান প্রথম প্রচারিত হয় বিটিভিতে ১৯৯০ সালে। তখন একই অনুষ্ঠানে তাঁর লেখা দুটি গানে কণ্ঠ দেন মো. রফিকুল আলম ও শাম্মী আখতার। তার পর থেকে এ পর্যন্ত বেতার, টেলিভিশন, অ্যালবাম, চলচ্চিত্র, নাটক সব মাধ্যমে প্রায় ৫০০টি গান লিখেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

 

ঐশ্বরিক অক্ষর

গত এক বছর একটি কবিতার বই লিখেছেন ফরায়জী। নাম দিয়েছেন ‘ঐশ্বরিক অক্ষর’। আসছে একুশে বইমেলায় অ্যাডর্ন পাবলিকেশন বইটি প্রকাশ করবে। এটি ফরায়জীর প্রথম কবিতার বই। সাজিয়েছেন ৮৪টি কবিতায়। ‘ঐশ্বরিক অক্ষর’ শব্দটি আমার কবিতার সঙ্গে মাখামাখি। জীবনবোধের সঙ্গেও যায়। তাই এমন নামকরণ। আমার গান যেমন মানুষের হূদয় স্পর্শ করেছে, কবিতাও তেমনি মানুষের আত্মাকে স্পর্শ করবে বলে বিশ্বাস করি’—বলছিলেন তিনি। ২০১৭ সালে নিজের লেখা বারী সিদ্দিকীর গাওয়া গান নিয়ে ‘চন্দ্র সূর্য যত বড় দুঃখ তার সমান’ শিরোনামে একটি বই প্রকাশ করেন ফরায়জী।

 

ফরায়জীর জনপ্রিয় ১০ গান

♦    অপরূপা তুমি অপরূপা-আসিফ আকবর

♦    দু’চোখে আমার শত্রু হলো-আসিফ আকবর

♦    সোনা দানা দামি গহনা-আলম আরা মিনু

♦    চন্দ্র সূর্য যত বড় আমার দুঃখ তার সমান-বারী সিদ্দিকী

♦    আমার মন্দ স্বভাব জেনেও তুমি-বারী সিদ্দিকী

♦    কষ্ট আছে জেনে যদি ভালো লাগে-মনির খান

♦    রঙিলা যে কেন বোঝো না-রুনা লায়লা

♦   প্রাণের চেয়ে বেশি প্রিয় তুমি হতে পারো-সাবিনা ইয়াসমিন

♦    সুযোগ পেলেই তোমার কাছে মনের কথা বলি-কুমার বিশ্বজিত্ ও শুভমিতা

♦    এমন ভালোবাসতে তোমায়-ন্যানিস

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা