kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

এবার নুসরাত

১০ বছরের ক্যারিয়ারে কয়েকটি হিট দিলেও আড়ালেই ছিলেন নুসরাত ভারুচা। ‘ড্রিম গার্ল’-এর মুক্তি উপলক্ষে তাঁকে নিয়ে লিখেছেন মামুনুর রশিদ

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এবার নুসরাত

নুসরাত ভারুচার বলিউড যাত্রা খুব একটা কম সময়ের নয়। ২০০৬ সালে ‘জয় সান্তোশি মা’ সিনেমায় খুবই অল্প সময়ের একটি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তবে তা  ছিল আনক্রেডিটেড। তাই ২০০৯ সালে দিবাকর ব্যানার্জির ‘লাভ, সেক্স অউর ধোঁকা’কেই তাঁর অভিষেক সিনেমা ধরা হয়। দিবাকরের মতো পরিচালকের সঙ্গে কাজ করলেও ১০ বছরের ক্যারিয়ারে নুসরাতের সিনেমার সংখ্যা নেহাতই হাতে গোনা; যদিও ‘পেয়ার কা পঞ্চনামা’র মতো হিট ও সমালোচক প্রশংসিত সিনেমাও করেছেন। ভালো অভিনয়দক্ষতা থাকার পরও প্রযোজক-পরিচালকদের প্রিয় মুখ হয়ে উঠতে পারেননি। একই হাল ছিল তাঁর আগের তিন সিনেমার সহকর্মী কার্তিক আরিয়ানেরও। তবে গেল বছর ‘সনু কি টিটু কি সুইটি’ ১০০ কোটি রুপির বেশি ব্যবসার পর নড়েচড়ে বসেন সবাই। আলোচনায় আসেন কার্তিক। একের পর এক ছবির প্রস্তাব পান। সে তুলনায় নুসরাত পেয়েছেন কমই। তবে আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘ড্রিম গার্ল’ দিয়ে আলোচনায় ফিরেছেন অভিনেত্রী। তা যতটা না নিজের জন্য, ততটা ছবির সহকর্মী আয়ুষ্মান খুরানার জন্য। কারণ একের পর এক হিট দিয়ে অভিনেতা আছেন সাফল্যের শীর্ষে।

তবে এত সব সমীকরণ নিয়ে চিন্তিত নন অভিনেত্রী, ‘আমার সুবিধা হলো, কম ছবি করলেও প্রতিটি চরিত্রই ছিল বৈচিত্র্যময়। এর মধ্যে আমি নেতিবাচক চরিত্র করে পুরস্কারও পেয়েছি। তাই আমার সামনে অভিনয়ের অনেক দরজাই খোলা। তবে এই ছবি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পর পর দুটি ছবি সাফল্য পেলে আশা করি প্রযোজক-পরিচালকদের আরো আস্থা পাব।’

নসুরাত চান, সিনেমা দেখে হল থেকে বের হওয়ার পরও যাতে দর্শক তাঁর চরিত্রটি মাথায় রাখে। সেই চাওয়া থেকেই ‘ড্রিম গার্ল’-এর চরিত্রটি করতে রাজি হন। তাঁর ক্যারিয়ারে একটি বড় মাত্রা আনতে চলেছে সিনেমাটি।  রোমান্টিক কমেডি ঘরানার সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন রাজ সান্ধিলা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা