kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

নতুন সাফা

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



নতুন সাফা

এবার ঈদে দুটি নাটক নির্মিত হয়েছে সাফা কবিরের গল্পে। অভিনেত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন মীর রাকিব হাসান

নাটকের পাণ্ডুলিপি পড়তে ভীষণ পছন্দ করেন। গল্প-উপন্যাস তো পড়েনই। পড়তে পড়তে প্রায়ই মনে হয়, একদিন নিজেও গল্প লিখবেন। অবশেষে লিখেই ফেললেন। সাফার গল্পে নির্মিত হয়েছে এবারের ঈদের দুটি নাটক—‘বিয়ে করা বারণ’, পরিচালনা করেছেন তপু খান; ‘লাস্ট গুডবাই’-এর পরিচালক মেহেদী হাসান জনি। ‘অনেক নাটকে অভিনয় করি। শুটিংয়ের আগে পরিচালকদের কাছ থেকে কত ধরনের গল্প শুনি। বলতে পারেন গল্পের মধ্যেই থাকি। ফলে নিজের মাথায়ও নতুন কিছু গল্প তৈরি হয়’—বললেন সাফা।

‘বিয়ে করা বারণ’-এর চিত্রনাট্য করেছেন হাসিব হাসান চৌধুরী। ‘লাস্ট গুডবাই’-এর চিত্রনাট্য যৌথভাবে করেছেন সাফা কবির ও মেহেদী হাসান।

‘বিয়ে করা বারণ’ নিয়ে সাফা বলেন, ‘পরিচালক তপু একটা গল্প শোনাচ্ছিলেন। তখন মনে হলো ওটার থেকে বেটার একটা গল্প হতে পারে। আমার আইডিয়াটা ডিরেক্টরের সঙ্গে শেয়ার করলাম। তপু খুব পছন্দ করলেন। তখন তিনি সায় দিলেন, আমার গল্প থেকেই নাটক বানাবেন।’

আর ‘লাস্ট গুডবাই’? ‘পরিচালক জনির সঙ্গে একটা গল্প শেয়ার করেছিলাম। সময় করে একদিন পুরো গল্পটা শুনলেন। এরপর আমাকে সঙ্গে নিয়ে তিনি চিত্রনাট্য করলেন’—বললেন সাফা।

‘লাস্ট গুডবাই’তে সাফা কবিরের সঙ্গে অভিনয় করেছেন তৌসিফ। গল্পে তাঁদের বন্ধুত্ব অনেক দিনের। চার বছর ধরে প্রেম। এর মধ্যে বহুবার তাদের ব্রেকআপ হয়েছে। একজন আরেকজনকে ‘লাস্ট গুডবাই’ বলেছেন অনেকবার। কিন্তু সেটা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। আসলে তাঁরা একজন আরেকজনকে ছাড়া থাকতেই পারেন না। একসময় পারিবারিকভাবে তাঁদের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। ঠিক তখনই তৌসিফ সিদ্ধান্ত নেন ব্রেকআপের। ‘বিয়ে করা বারণ’-এও সাফার সঙ্গে অভিনয় করেছেন তৌসিফ মাহবুব।

এই দুটি নাটক নির্মিত হওয়ার পর সাহস বেড়েছে সাফার। মাথায় যত গল্প ঘুরপাক খায়, সবই শেয়ার করতে চান পরিচালকদের সঙ্গে। ‘শুটিংয়ের আগে ও পরে আমরা সবাই একে অন্যের কাছে নিজেদের ভাবনা শেয়ার করি। দিন শেষে আমরা সবাই চাই দর্শককে ভালো কিছু দিতে। হয়তো ভবিষ্যতে আরো কিছু নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি চিত্রনাট্যেও আমার অংশগ্রহণ থাকবে’—বললেন সাফা।

এই দুটিসহ এবার ঈদে প্রায় ১০টি নাটক-টেলিফিল্ম প্রচারিত হবে সাফার। এর মধ্যে রয়েছে মেহেদী হাসান হৃদয়ের ‘ফাহিম দ্য গ্রেট ফাজিল টু’, মাকসুদুল ইমুর ‘ড্রিম অ্যান্ড লাভ’, ইফতেখার আহমেদ ফাহমির ‘নো ওয়ে আউট’ ও আশফাক নিপুনের নাম চূড়ান্ত না হওয়া আরেকটি নাটক। 

ঈদের নাটকে নিজের অভিনীত চরিত্রগুলো নিয়ে বলেন, “ফাহমি ভাইয়ের গল্পে আমাকে দেখে মনে হবে সাইকো। শেষে অন্য কিছু বের হবে। নিপুন ভাইয়ের গল্পে আমি হাউসওয়াইফ। ‘ফাহিম দ্য গ্রেট ফাজিল’-এ আমাদের বিয়ে হওয়ার কথা চলছিল। সিক্যুয়ালে এসে বিয়েটা হয়। বিয়ের পরের ঘটনা নিয়ে এবারের কিস্তি। ‘বিয়ে করা বারণ’-এ আমি বিয়েবাড়ি থেকে পালানো মেয়ে। প্রতিটি চরিত্রই আলাদা।”

অনেক সমালোচকের মতে, গেল দুই বছরে অভিনয়ের ধরনটাই বদলে ফেলেছেন সাফা। তিনি নিজেও মানেন সেটা, “ক্লোজআপ কাছে আসার গল্প ‘এই গল্পের নাম নেই’ আমার ক্যারিয়ারে অনেক প্রভাব রেখেছে। এটি প্রচারের পর দেখেছি আমাকে নিয়ে ভিন্ন কিছু ভাবছেন নির্মাতারা। এখন যে চরিত্রগুলো পাই, সব কটিতেই ডেপথ থাকে।”

ঈদের কয়েকটি টিভি অনুষ্ঠানেও উপস্থিত হবেন। এর মধ্যে মাছরাঙা টেলিভিশনের একটি টিভি শো হোস্ট করবেন। এই শোর শুটিংয়ে যেতে যেতেই কথা বললেন সাফা। প্রীতম হাসান ও নুহাশ হুমায়ূনের সঙ্গে আড্ডা দেবেন এই অনুষ্ঠানে। এর আগে এই তিনজন একসঙ্গে করেছিলেন মিউজিক ভিডিও ‘খোকা’।

এ ছাড়া নিজের ইউটিউব চ্যানেল নিয়েও আছে ব্যস্ততা। নিয়মিত সেখানে ভিডিও আপলোড করেন। প্রতি রবিবার রাত ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এবিসি রেডিও ৮৯.২-এ সরাসরি প্রচারিত হয় ‘লাভ স্ট্রাক বাই সাফা কবির’। প্রায় দুই বছর হলো অনুষ্ঠানটির বয়স। সাফা জানালেন, শিগগিরই বন্ধ হয়ে যেতে পারে অনুষ্ঠানটি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা