kalerkantho

সোমবার । ২৬ আগস্ট ২০১৯। ১১ ভাদ্র ১৪২৬। ২৪ জিলহজ ১৪৪০

অ্যানার ষোলো আনা

২০ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



 অ্যানার ষোলো আনা

লাস্যময়ী গুপ্তঘাতককে নিয়ে সারা দুনিয়ায় তৈরি হয়েছে অনেক চলচ্চিত্রই। তবে সেটা যখন করেন লুক বেসোঁ, আলাদা হতে বাধ্য। আগামীকাল মুক্তি পাচ্ছে তাঁর ছবি ‘অ্যানা’। লিখেছেন হাসনাইন মাহমুদ

সময়ের অন্যতম সেরা ফরাসি পরিচালক লুক বেসোঁ। তবে সাম্প্রতিক সময়টা একদমই ভালো যাচ্ছে না তাঁর। সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘ভ্যালেরিয়ান অ্যান্ড দ্য সিটি অব আ থাউজেন্ড প্লানেটস’ বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছিল। এরপর ব্যক্তিগত জীবনেও নেমে আসে কালো অধ্যায়। ওলন্দাজ এক অভিনেত্রী ধর্ষণের অভিযোগ করেন পরিচালকের বিরুদ্ধে; যদিও কর্তৃপক্ষ অভিযোগের সত্যতা খুঁজে পায়নি। এই কঠিন সময়ে পরিচালকের নতুন চলচ্চিত্র আসছে প্রেক্ষাগৃহে। এক নারী গুপ্তচরের দুঃসাহসিক অভিযানের গল্প নিয়ে নির্মিত ‘অ্যানা’ মুক্তি পাচ্ছে আগামীকাল। ছবির নাম ভূমিকার এই অ্যানা পোলিয়াটোভার সৌন্দর্যের আড়ালে লুকিয়ে আছে এক ভয়ংকর রহস্য। মোহময় হাসির আড়ালে সে একজন গুপ্তচর, সরকারের গোয়েন্দা বাহিনীর হয়ে শত্রুকে খুন করাই পেশা। এই ভয়ংকর পেশা একসময় তার জন্য কঠিন পরিস্থিতি তৈরি করে, বৈশ্বিক রাজনীতির গভীর জালে জড়িয়ে পড়তে হয়। ছবির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন রাশিয়ান মডেল সাশা লুস। এ ছাড়া দেখা যাবে অস্কারজয়ী হেলেন মিলেন, সিলিয়ান মারফি ও লুক ইভান্সের মতো তারকাদের।

‘ফেমে ফ্যাটালে’ এই চলচ্চিত্রের প্রধান উপজীব্য। এই প্রবাদ দিয়ে আকর্ষণীয় এবং একই সঙ্গে দুর্ধর্ষ নারীদের বোঝানো হয়। ফরাসি চলচ্চিত্র ‘ফেমে ফ্যাটালে’, জেমস বন্ড সিরিজের বন্ড গার্লরা কিংবা অ্যাঞ্জেলিনা জোলির করা অ্যাকশনধর্মী চরিত্রগুলো এই প্রবাদকে বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয়তা দেয়। বেসোঁর ‘লুসি’ চলচ্চিত্রেও দর্শক এ ধরনের একটি চরিত্রকেই দেখেছিল। সেবার দর্শকের মন জয় করেছিলেন স্কারলেট জোহানসন। এবার অ্যানারূপী সাশা লুসের পালা। ছবির ট্রেলার মুক্তির পরই আলোচনায় অভিনেত্রী। কারণ আগে তাঁকে খুব একটা দেখা যায়নি। ২৭ বছর বয়সী সাশার এবার মাত্র দ্বিতীয়বার ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানো। খুব অল্প বয়সেই রাশিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় মডেলে পরিণত হয়েছিলেন। চলচ্চিত্রে ক্যারিয়ার গড়ার ইচ্ছাটাও ছিল বেশ। বেসোঁর কাছে গিয়ে বললেন, অভিনয় করতে চান। তবে পরিচালক শুধু সৌন্দর্যের কারণে কাউকে ছবিতে নিতে নারাজ। উপদেশ দিলেন, করতে হবে অভিনয়ের ক্লাস। গুরুর কথা রেখেই শূন্য থেকে শুরু করলেন সাশা। ‘ভ্যালেরিয়ান অ্যান্ড দ্য সিটি অব আ থাউজেন্ড প্লানেটস’ দিয়ে অভিনয়ের ক্যারিয়ার শুরু। দ্বিতীয় চলচ্চিত্রেই পেয়ে গেলেন নাম ভূমিকার চরিত্র। পরিচালক বেজায় উচ্ছ্বসিত সাশাকে নিয়ে, ‘চলচ্চিত্রের একজন নক্ষত্র আবিষ্কারের কৃতিত্বটা আমিই নিতে চাই।’

চলচ্চিত্রটির মুক্তির সঙ্গে সঙ্গে বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে নতুন গুঞ্জন—এটাই নাকি বেসোঁর শেষ চলচ্চিত্র হতে যাচ্ছে! আগের ছবির ভয়াবহ বক্স ব্যর্থতা যার কারণ। যে ছবি বেসোঁর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইউরোপাকর্পকে করেছে দেউলিয়া। ‘অ্যানা’র সাফল্যের ওপর নির্ভর করছে পরিচালকের ভবিষ্যৎ।

মন্তব্য