kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ আগস্ট ২০১৯। ৮ ভাদ্র ১৪২৬। ২১ জিলহজ ১৪৪০

ঈদের ছবি দেখেছিলেন!

২০ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ঈদের ছবি দেখেছিলেন!

বিদ্যা সিনহা মিম

ছবি মুক্তির সময় সবাইকে সিনেমা হলে গিয়ে দেখার কথা বলেন তারকারা। হলে গিয়ে দেশীয় ছবি দেখাকে অনেক তারকাই মনে করেন ‘দেশপ্রেম’। এ বছর ঈদে যাঁদের ছবি মুক্তি পায়নি, তাঁরা কি হলে গিয়েছিলেন ছবি দেখতে? খোঁজ নিয়েছেন সুদীপ কুমার দীপ

শাকিব খান থেকে শুরু করে হালের সিয়াম আহমেদ—সব তারকাই ভক্তদের অনুরোধ করেন সবাই যেন হলে যান, বাংলা ছবির পাশে থাকেন। কিন্তু এই তারকারা কি অন্য তারকার ছবি হলে গিয়ে দেখেন? এই ঈদে মুক্তি পেয়েছে শাকিব-বুবলীর ‘পাসওয়ার্ড’, শাকিব-ববির ‘নোলক’ ও তারিক আনাম খান-স্পর্শিয়ার ‘আবার বসন্ত’। ছবিগুলোর সব তো দূরে থাক, অন্তত একটি দেখেছেন কি না এই সময়ের কোনো কোনো তারকা?

শুরুতেই জানতে চাওয়া হলো মাহিয়া মাহির কাছে। না, তিনটির একটিও দেখেননি তিনি। তবে কৈফিয়ত দিলেন, ‘ঈদে শ্বশুরবাড়িতে ছিলাম টানা দুই সপ্তাহ। তাই দেখতে পারিনি। হলে গিয়ে ছবি দেখাটা পছন্দের হলেও এবার যাইনি। শ্বশুরবাড়িতে থেকে চাইলেই তো একা একা গিয়ে ছবি দেখতে পারব না। শ্বশুর-শাশুড়ি, ননদ, দেবর সবাইকে নিয়ে দেখতে হবে। এত বড় দলবল নিয়ে যে হলে যাব সেখানকার পরিবেশ কেমন সেটাও ভাবতে হয়! অপুকে [স্বামী] একবার বলেওছিলাম। কিন্তু ওর ভাব দেখে মনে হলো না যাওয়াটাই ভালো।’

ঢাকায় আসার পরও কিন্তু দেখেননি মাহি। কেন? “১৪ জুন ঢাকায় এসেছি। নতুন ছবির গল্প ও পরিচালকদের শিডিউল নিয়ে এখন ব্যস্ত হয়ে পড়েছি। সামনের সপ্তাহেই ‘আনন্দ অশ্রু’র শুটিং। ঈদে মুক্তি পাওয়া ছবির কলাকুশলীদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। পরে সময় করে দেখব।”

গত বছর ঈদে মুক্তি পায় পূজা চেরী ও সিয়াম আহমেদের ‘পোড়ামন ২’। ছবির প্রচারণায় উঠেপড়ে লাগেন দুজন। একাধিকবার ফেসবুক লাইভে এসে সবাইকে ছবিটি দেখার আমন্ত্রণও জানিয়েছিলেন তাঁরা। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াতেও বলেন, ইন্ডাস্ট্রির মানুষদেরও ছবিটি দেখা উচিত। কিন্তু সেই পূজা আর সিয়াম কি এবার ঈদের ছবি দেখেছেন? “ঈদের দুই দিন পর থেকে ‘শান’ ছবির শুটিং। এক সপ্তাহ আগে থেকেই শুটিংয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। আমি জানি, একজন অভিনেত্রীর আরেকজন অভিনেত্রীর ছবি দেখা উচিত। এতে নিজের অভিনয়ের তুলনা করা যায়। ঘাটতিগুলো পূরণের ইচ্ছা তৈরি হয়। তা ছাড়া আমরা ইন্ডাস্ট্রির মানুষ। আমরাই যদি ছবি না দেখি তাহলে দর্শক ছবি দেখবে কেন! সবই বুঝি, কিন্তু উপায় ছিল না”—বললেন পূজা। আর সিয়াম? ‘ঈদের পর দুই দিন পরিবারকে সময় দিয়েছি। অন্য কিছু নিয়ে ভাবতেই পারিনি। তৃতীয় দিন থেকেই শুটিং। একের পর এক লোকেশন পরিবর্তন হচ্ছে। এই ঢাকায় তো আবার নারায়ণগঞ্জ। এখন আছি সাভারে। কোনোভাবেই ঈদের ছবি দেখার সময় বের করতে পারিনি।’

গত বছর মুক্তি পেয়েছিল বিদ্যা সিনহা মিমের ‘আমি নেতা হব’। বেশ কয়েকটি হলে নিজে গিয়ে ছবিটি দেখেছিলেন। সহকর্মীদেরও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন ছবিটি দেখতে। কিন্তু তিনিও দেখেননি এবারের ঈদের ছবি। কেন? ‘ঈদে আমাদের পারিবারিক ড্রাইভার ছুটি নিয়েছিল। ভেবেছিলাম ঈদের পর পরই সে আসবে; কিন্তু আসতে দেরি হয়েছে। আমি নিজে গাড়ি চালাতে পারলেও ঢাকায় কখনো একা বের হই না। তাই ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও কোনো ছবি দেখতে পারলাম না। এখন যে দেখব, সে উপায়ও নেই। বেশ কিছু নতুন কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছি। ফটোশুট চলছে একদিকে, অন্যদিকে শুটিং। এর মধ্যে আবার কলকাতা যাওয়ার কথা। ফলে অনেকটা নিশ্চিত, ঈদে মুক্তি পাওয়া কোনো ছবিই আমার দেখা হচ্ছে না।’

নতুন কোনো ছবি মুক্তি পাওয়া মানেই ফেসবুকে নায়ক সাইমন সাদিকের স্ট্যাটাস, সেটা যেকোনো তারকার ছবিই হোক। নিজের দর্শকদের ছবিটি দেখতে বলেন বরাবরই। এমনও হয়েছে বাপ্পী-শুভর ছবি মুক্তি পেয়েছে, সাইমন প্রচারণা চালিয়েছেন ছবির। কিন্তু এবার অন্যদের মতো তিনিও ঈদের কোনো ছবিই দেখেননি।

কী কারণ দেখাবেন সাইমন? ‘ঈদে দুই সপ্তাহ ধরে বাড়ি ছিলাম। ১৬ জুন ঢাকায় এসেছি। ফলে ছবি দেখাটা হয়ে ওঠেনি। আগে বাড়ির আশপাশের হলে গিয়ে ছবি দেখেছি। কিন্তু এবার ক্রিকেট বিশ্বকাপের কারণে সব ওলটপালট হয়ে গেল। যে কদিন ভেবেছি ছবি দেখব, সেই কদিনই কোনো না কোনোভাবে বাংলাদেশের খেলা পড়েছে। ফলে বন্ধুদের নিয়ে টিভির সামনেই সময় কাটিয়েছি। শুনেছি এবার ঈদে ছবির ফলাফল ভালো। আমিই তো সবাইকে ছবি দেখার আমন্ত্রণ জানাই। আশা করছি, দু-এক দিনের মধ্যে সময় করে ছবিগুলো দেখা শুরু করব।’

মন্তব্য