kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এবার কমেডি

‘দঙ্গল’-এর ববিতার পর ‘পাটাকা’র গিন্দা—একেবারেই সিরিয়াস টাইপ চরিত্র। সেখান থেকে বেরিয়ে এসে সানিয়া মালহোত্রাকে দেখা যাবে কমেডি চরিত্রে। আগামাীকাল ‘বাধাই হো’র মুক্তি উপলক্ষে অভিনেত্রীকে নিয়ে লিখেছেন মামুনুর রশিদ

১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এবার কমেডি

আমির খানের সঙ্গে কাজ করলে নাকি ক্যারিয়ারই বদলে যায়। কথাটা পুরো সত্যি সানিয়া মালহোত্রার ক্ষেত্রে। ‘দঙ্গল’-এ আমিরকন্যা ববিতা কুমারীর চরিত্র দিয়ে শুরু। অভিনয়, এক্সপ্রেশন—সব কিছু দিয়েই নজর কেড়েছিলেন। এরপর যেন খানিকটা হারিয়েই গিয়েছিলেন। ফিরলেন দুই বছর পর বিশাল ভরদ্বাজের ‘পাটাকা’ দিয়ে। প্রথম ছবির পর দ্বিতীয়টি করতে দুই বছর লাগলেও তৃতীয়টি নিয়ে আসছেন দুই মাসেরও কম সময়ে! সানিয়া বলছেন, শক্তিশালী গল্প না হলে কাজ করবেন না তিনি। ‘এর মতো বা ওর মতো হওয়ার কোনো উচ্চাশা নেই। আমি শুধু ভালো কাজ করতে চাই। তেমন কাজ পেলে বছরে যতগুলো পারি ছবি করব, না পেলে দীর্ঘ বিরতিতেও সমস্যা নেই,’ বলছেন তিনি। চরিত্র বাছাইয়ের ক্ষেত্রে তাঁর আরেকটি নীতি—কোনোমতেই নারীবিদ্বেষী হওয়া যাবে না। ‘দঙ্গল’-এর পর ‘পাটাকা’য় ঝগড়াটে গিন্দা কুমারী চরিত্রেও তাঁর অভিনয় ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছে। খোদ আমির খানও তাঁর প্রশংসা করেছেন, ‘পাটাকা’ দেখতে আহ্বান জানিয়েছেন, যাতে আপ্লুত অভিনেত্রী, ‘আমির স্যার অন্য রকম ব্যক্তিত্ব। তাঁর প্রেরণা জীবন বদলে দিতে পারে। তারকাখ্যাতি, চাকচিক্য ইত্যাদির দিকে না তাকিয়ে শুদু অভিনয়ে মন দিতে তাঁর থেকেই শিখেছি।’ এখন অভিনয় নিয়ে এত আগ্রহী সানিয়া শুরুতে ছিলেন নাচপাগল। দিল্লির এই মেয়ে অংশ নিয়েছেন বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় টিভি রিয়ালিটি শোতেও। কিন্তু পরে মাথায় চাপে অভিনয়ের ভূত, সোজা মুম্বাই। অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে সুযোগ পান ‘দঙ্গল’-এ। তবে ‘পাটাকা’কে ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট মনে করেন সানিয়া, “এই ছবির জন্য রাজস্থানি ভাষা শিখেছি; গরুর দুধ দোয়ানো, ছন দিয়ে ঘর ছাওয়া শিখতে হয়েছে। সত্যি বলতে, আগে আমার এতটা কষ্ট করার ধৈর্য ছিল না। কিন্তু ‘দঙ্গল’, ‘পাটাকা’ করে আমার দর্শন বদলে গেছে। এই ছবি আমাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে আরো দৃঢ় করেছে।”

সানিয়ার প্রথম দুই ছবির চরিত্র সিরিয়াস টাইপ। তবে কি শুধু এ ধরনের চরিত্রই করবেন? ‘তা কেন? আমি তো পর্দায় নাচার জন্য পাগল হয়ে আছি। সব ধরনের ছবিই করতে চাই। যদি অভিনয়ে ফেল মারি, তাহলে নাচে ক্যারিয়ার গড়ারও পরিকল্পনা আছে। এটা বলতে পারেন প্ল্যান বি,’ বলেন তিনি।

আগামীকাল মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘বাধাই হো’ খানিকটা কম সিরিয়াস, কমেডি ঘরানার। সানিয়ার বিপরীতে আছেন আয়ুষ্মান খুরানা, যিনি আবার সানিয়ার প্রিয় অভিনেতার একজন। ক্যারিয়ারের শুরুতেই আমির খান, বিশাল ভরদ্বাজ আর প্রিয় অভিনেতা আয়ুষ্মানের সঙ্গে ছবি। সব মিলিয়ে দারুণ সময় কাটছে। তবে ক্যারিয়ারে যেকোনো সময় ব্যর্থতাও আসতে পারে, সেটাও তাঁর ভালোই জানা, ‘মানুষ আমার এখনকার সাফল্য দেখছে, আগের ব্যর্থতার কথা কেউ জানে না। আমি কতবার অডিশন দিয়ে ব্যর্থ হয়েছি, ইয়ত্তা নেই। মুম্বাইয়ের মতো শহরে এসে জায়গা করে নেওয়া সহজ নয়। তখনকার স্মৃতি এখনো টাটকা, তাই ব্যর্থতার ভয় পাই না। সব ধরনের অভিজ্ঞতা আছে আমার।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা