kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মেরুন ফাইভের ‘গার্লস লাইক ইউ’ ঝড়

মেরুন ফাইভের রেকর্ডভাঙা সিঙ্গল ‘গার্লস লাইক ইউ’। অ্যাডাম লেভিনের সঙ্গে গানটির রিমিক্স ভার্সনে কণ্ঠ দিয়েছেন কার্ডি বি। ভিডিওতে ক্যামিও হিসেবে জড়ো করা হয়েছে ২৫ জন বিখ্যাত নারী শিল্পীকে। ছয় মাসেই এক বিলিয়নের বেশিবার দেখা এই ভিডিওটি বছরের সবচেয়ে জনপ্রিয় হওয়ার পথে। লিখেছেন পার্থ সরকার

১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মেরুন ফাইভের ‘গার্লস লাইক ইউ’ ঝড়

মেরুন ফাইভের ষষ্ঠ স্টুডিও অ্যালবাম ‘রেড পিল ব্লুজ’ বাজারে আসে ২০১৭-র অক্টোবরে। অ্যালবামের নাম নেওয়া হয় ১৯৯৯ সালের বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘ম্যাট্রিক্স’ থেকে। এই অ্যালবামেরই সিঙ্গল ‘গার্লস লাইক ইউ’ বর্তমানে বিলবোর্ডসহ সব টপচার্টে রাজত্ব করছে। জয়জয়কারের শুরু  অবশ্য এ বছরের মে মাসে। বছরের শুরুতে মেরুন ফাইভ সিদ্ধান্ত নেয় গানটি রিমিক্স করে এতে র‌্যাপার কার্ডি বির অংশ যোগ করে আবার বাজারে ছাড়ার। রিমিক্সের পর নতুনভাবে ভিডিও করে ভেভোতে আপলোড করা হয় ৩০ মে। এর পর থেকে এই ভিডিওতে তোলপাড় গোটা দুনিয়া। একজন-দুজন নয়, কার্ডি বি ছাড়া আরো ২৫ জন নারী তারকাকে এই ভিডিওতে এক করতে পারাটাই মেরুন ফাইভের বিশাল সাফল্য। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, অ্যাডাম লেভিন মাঝখানে দাঁড়িয়ে গান গাইছেন আর ক্যামেরা তাঁকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। স্টেজে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ব্যান্ডের বাকি সদস্যরা। তবে মজাটা হলো, প্রতিবার ক্যামেরা ঘোরার সঙ্গে সঙ্গে বদলে যায় অ্যাডামের পাশে থাকা নারী শিল্পী। এত বড় বড় তারকাকে এক দিনে পাওয়া যায়নি। তাই পরিচালক ডেভিড ডবকিনকে প্রচুর গ্রিন স্ক্রিন ও স্পেশাল ইফেক্টের  সাহায্য নিতে হয়েছে। সবচেয়ে বড় ধাক্কা ছিল ভিডিওর একেবারে শেষে অ্যাডামের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা স্ত্রী নামিবিয়ান মডেল বেহাতি প্রিন্সলু এবং তাঁদের বড় মেয়ে ডাস্টি রোজ। নিজের পরিবারকে এভাবে ভিডিওতে এনে আরো আলোচনায় অ্যাডাম লেভিন।

কার্ডি বি ছাড়াও এই ভিডিওতে হাজির হয়েছেন ক্যামিলা কাবেলো (গায়িকা), ফিবি রবিনসন (কমেডিয়ান-অভিনেত্রী), অ্যালি রেইসম্যান (অলিম্পিক সোনাজয়ী জিমন্যাস্ট), সারাহ সিলভারম্যান (কমেডিয়ান-অভিনেত্রী), গ্যাল গাদত (মডেল-অভিনেত্রী), লিলি সিং (ইউটিউবার-কমেডিয়ান), আমানি আল-খাতাতবেহ (লেখক-টেক উদ্যোক্তা-অ্যাক্টিভিস্ট), ট্রেস লিসেট (অভিনেত্রী), টিফানি হাডিশ (অভিনেত্রী-কমেডিয়ান), অ্যাঞ্জি রিভেরা (অ্যাক্টিভিস্ট-লেখক), ফ্র্যান্সেসকা র‌্যামসে (অ্যাক্টিভিস্ট-লেখক-ইউটিউবার), মিলি ববি ব্রাউন (অভিনেত্রী), অ্যালেন ডিজেনারেস (টিভি উপস্থাপিকা-কমেডিয়ান), জেনিফার লোপেজ (অভিনেত্রী-গায়িকা), ক্লো কিম (অলিম্পিক স্লো বোর্ডিং খেলোয়াড়), অ্যালেক্স মরগান (অলিম্পিক সকার খেলোয়াড়), ম্যারি জে ব্লিজ (গায়িকা-অভিনেত্রী), বেনি ফেল্ডস্টেইন (অভিনেত্রী), জ্যাকি ফিল্ডার (লেখক-অ্যাক্টিভিস্ট), ড্যানিসা প্যাট্রিক (রেসকার ড্রাইভার), ইলহান ওমর (রাজনীতিক), এলিজাবেথ ব্যাংকস (অভিনেত্রী), অ্যাশলে গ্রাহাম (মডেল), রিটা ওরা (গায়িকা) ও বেহাতি প্রিন্সলু (মডেল)।

এত অল্প সময়ের জন্য তারকারা পর্দায় থাকেন যে ভিডিওটি একবার দেখে অনেকেই বুঝতে পারবে না, বারবার দেখতে হবে। গানটির ভেতরেও আছে অদ্ভুত এক মাদকতা। প্রিয় মানুষটির সঙ্গে হেডফোন শেয়ার করে বা তাকে পাশে নিয়ে গাড়ি চালানোর সময় গানটি শুনতে থাকলে অন্য কিছু মাথায় ঢোকার সুযোগ নেই। এ কারণেই হয়তো মাত্র ছয় মাসেই ভিডিওটি দেখা হয়েছে এক বিলিয়নের চেয়ে বেশিবার। প্রশ্ন হলো, ভিডিওতে কেন এত বড় বড় নাম? কেনই বা তাঁরা রাজি হলেন এতে মুখ দেখানোর জন্য? অ্যাডাম লেভিন জানালেন, এই ভিডিওর মূল বক্তব্যই হচ্ছে নারীশক্তি। ‘আমাদের সমাজে নারীরা এখন অনেক শক্তিশালী। তারা চাইলে পারে না এমন কোনো কাজ নেই। নারীশক্তির এই জয়গান গাইতেই সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের সফল নারীদের এক করেছি এই ভিডিওতে।’

তবে গানের কথা কিন্তু পুরোপুরি রোমান্টিক। প্রেমিকাকে বলা ভালোবাসার কথাই বলা হয়েছে প্রতিটি লাইনে। আর কার্ডি বির র‌্যাপ অংশে যেন উঠে এসেছে তাঁর নিজের জীবনযুদ্ধের গল্প। গানটির অডিও-ভিডিও একে অপরকে নিয়ে গেছে অন্য এক উচ্চতায়। ইউটিউব, ভেভোসহ যেকোনো প্ল্যাটফর্মেই গানটি খুঁজে পাবেন সহজে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা