kalerkantho

সোমবার । ২৮ নভেম্বর ২০২২ । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

একই ছাদনাতলায় ফেরার ভাবনা ধনুশ-ঐশ্বর্যর

রংবেরং ডেস্ক   

৬ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একই ছাদনাতলায় ফেরার ভাবনা ধনুশ-ঐশ্বর্যর

ধনুশ ও ঐশ্বর্য রজনীকান্ত

২০০৪ সালে তামিল ছবির তারকা অভিনেতা ধনুশ বিয়ে করেন পরিচালক ঐশ্বর্য রজনীকান্তকে। সুপারস্টার রজনীকান্তের মেয়ে ঐশ্বর্য। ধনুশ-ঐশ্বর্যর ঘরে তাঁদের দুই পুত্র—যাত্রা ও লিঙ্গ। বিয়ের দেড় যুগ পর এ বছরের জানুয়ারিতে হঠাৎ বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছিলেন ধনুশ ও ঐশ্বর্য।

বিজ্ঞাপন

যৌথ বিবৃতি দিয়ে তাঁরা জানিয়েছিলেন,  ‘বন্ধু হিসেবে, জুটি হিসেবে, বাবা-মা হিসেবে ১৮ বছরের এই পথ চলা। সফরটা ছিল মানুষ হিসেবে বেড়ে ওঠার, একে অন্যকে বুঝে ওঠার, মানিয়ে চলার। আজ আমরা এমন এক সিদ্ধান্তে এসে পৌঁছেছি, যেখানে আমরা বুঝতে পারছি এবার আমাদের পথ আলাদা হওয়াটাই ভালো। আমি আর ঐশ্বর্য আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যুগল হিসেবে এত দিন থেকেছি। এবার নিজেদের নিজেদেরকে বোঝার পালা। ’

এই খবর রীতিমতো ‘হতাশাজনক’ মনে হয়েছে ভক্তদের কাছে। তাঁদের দুজনকে আদর্শ দম্পতি মানতেন অনেকেই। বিচ্ছেদের ঘোষণা দেওয়ার ৯ মাস পর খবর মিলল, আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তাঁরা। ভাবছেন, কী করে আবার একই ছাদনাতলায় থাকা যায়। নতুন এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বয়ে যায় শুভেচ্ছার বন্যা।

জানা গেল, মেয়ে আর জামাইকে এক করতে উদ্যোগ নিয়েছেন স্বয়ং রজনীকান্ত। বিবাহবিচ্ছেদের আইনি পদ্ধতি চলার সময় এই দম্পতির ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে কথা ওঠে। সেসব সমাধানযোগ্য বলেই মনে করে রজনীকান্ত পরিবার।

একই মত দিয়েছে ধনুশের পরিবারও। দুই পরিবারের সদস্যদের পরামর্শ মেনে ধনুশ ও ঐশ্বর্য দুজনই দ্বিতীয়বার ভাবতে বসেছেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, রজনীকান্তের বাড়িতে একটি পারিবারিক বৈঠক হয়। সেখানে ফলপ্রসূ আলোচনার পর আপাতত বিচ্ছেদের মামলা স্থগিত রাখা হয়েছে। আবারও একসঙ্গে ভালো থাকার চেষ্টা করবেন ধনুশ-ঐশ্বর্য।



সাতদিনের সেরা