kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ জুলাই ২০২২ । ২১ আষাঢ় ১৪২৯ । ৫ জিলহজ ১৪৪৩

বাংলাদেশিদের হতাশ হওয়ার কারণ বুঝতে পারছেন না বেনেগাল

রংবেরং প্রতিবেদক   

২৩ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশিদের হতাশ হওয়ার কারণ বুঝতে পারছেন না বেনেগাল

‘মুজিব—দ্য মেকিং অব আ নেশন’ ছবির শুটিংয়ে আরিফিন শুভকে দৃশ্য বুঝিয়ে দিচ্ছেন পরিচালক শ্যাম বেনেগাল ছবি : সংগৃহীত

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিক ‘মুজিব—দ্য মেকিং অব আ নেশন’ নির্মাণ করেছেন ভারতীয় পরিচালক শ্যাম বেনেগাল। ৭৫তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের তৃতীয় দিনে সেখানকার ফিল্মবাজার মার্শে দ্যু ফিল্মের ভারতীয় স্টলে ছবিটির ট্রেলার উন্মোচন করা হয়। ট্রেলারটি প্রকাশ হতে না হতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় সমালোচনার ঝড়। হতাশা ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে অভিনেতা, নির্মাতা, কবি-সাহিত্যিক, সাংবাদিকসহ সব স্তরের মানুষ।

বিজ্ঞাপন

পর্দায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুর্বল উপস্থাপনায় ব্যথিত হয়েছেন অনেকেই। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু চরিত্রে আরিফিন শুভর গেটআপ, কণ্ঠ, ছবির কালার, ভিএফএক্স, শিল্পীদের মেকআপ, শিল্প নির্দেশনা ও প্রপস নিয়ে সমালোচনা করেছেন তাঁরা। বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনায় ৪০ কোটি রুপি বাজেটের ছবিতে এমন অসামঞ্জস্যতা দেখে হতাশা ব্যক্ত করেছেন সবাই।

এসব সমালোচনার খবর কানে গেছে ৮৭ বছর বয়সী ভারতীয় নির্মাতা শ্যাম বেনেগালেরও। গতকাল ভারতের দ্য টেলিগ্রাফ অনলাইনকে তিনি বলেন, সবার এমন ঢালাও সমালোচনার কারণ তিনি বুঝে উঠতে পারছেন না। শ্যাম বেনেগাল বলেন, ‘একটা মেসেজ এসেছে আমার কাছে, সেখানে দেখলাম অনেক মন্তব্য। ট্রেলার দেখে তাঁরা কেন হতাশ, সেটা অনুমান করা আমার পক্ষে খুবই কঠিন। সোমবার অফিসে গিয়ে ট্রেলারটা আমি আবার দেখব। কানে কিন্তু ট্রেলারের উপস্থাপনা খুব ভালো ছিল। সেখানে বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী ও তাদের দূত উপস্থিত ছিলেন। ’

পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি আইকন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর বায়োপিক ‘বোস—দ্য ফরগটেন হিরো’ বানিয়েছিলেন বেনেগাল। সেই ছবি নিয়েও বিতর্ক উঠেছিল। আদালতেও যেতে হয়েছিল বেনেগালকে। ছবিতে দেখানো হয় নেতাজি বিয়ে করেছেন, যেটা অনেকের মতে সঠিক ছিল না, এটাকে নেতাজির প্রতি অসম্মান দেখানো হয়েছে বলেও মনে করেছেন অনেকে। কিন্তু ‘মুজিব’-এ কোনো বিতর্ক খুঁজে পাওয়ার কারণ দেখছেন না বেনেগাল। ছবির ট্রেলারে তাঁকে একজন আপাদমস্তক ‘ফ্যামিলিম্যান’ দেখানো হয়েছে। বেনেগাল বলেন, ‘বোস বেঙ্গল ছেড়ে পরিবার থেকে অনেক দূরে ছিলেন। কিন্তু মুজিব বরাবরই পরিবারের সঙ্গেই ছিলেন, শুধু যে সময়টা তিনি জেলে ছিলেন এবং পশ্চিম পাকিস্তানে ছিলেন, সেই সময়টা ছাড়া। এ কারণেই আমি আগে জানার চেষ্টা করব নেতিবাচক মন্তব্য আসলে কোন বিষয়গুলো নিয়ে আসছে। ’

‘মুজিব—দ্য মেকিং অব আ নেশন’ ছবির সব অভিনেতা-অভিনেত্রীই বাংলাদেশের—সেটা মনে করিয়ে দিয়ে বেনেগাল বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের কিছু বাংলা শব্দের সঙ্গে বাংলাদেশের বাংলার উচ্চারণের পার্থক্য রয়েছে, বাংলাদেশিরা তাদের বাংলা নিয়ে গর্বিত। ছবিতে এসবই আছে। এ কারণে আমি শুধু বাংলাদেশের অভিনেতাদের নিয়েছিলাম, কারণ তারাই মুজিবকে বেশি ধারণ করতে পারবে। ’

সর্বশেষ শ্যাম বেনেগাল পুরো ছবি দেখার কথা বলে বলেন, ‘৯০ সেকেন্ডের একটা ট্রেলার দেখে আপনি পুরো ছবি সম্পর্কে মন্তব্য করতে পারেন না। হ্যাঁ, শুধু ট্রেলার নিয়ে মন্তব্য করতে পারেন। ’

পদ্মশ্রী, পদ্মভূষণ ও দাদা সাহেব ফালকে পুরস্কার পাওয়া ভারতীয় গুণী নির্মাতা শ্যাম বেনেগালকে বলা হয় ‘বায়োপিক স্পেশালিস্ট’।

‘মুজিব—দ্য মেকিং অব আ নেশন’-এর আগে তিনি মহাত্মা গান্ধী, নেতাজি সুভাষচন্দ্র  বসু, সত্যজিৎ রায়কে নিয়েও

চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। তাঁর

সর্বশেষ মুক্তি পাওয়া ছবি ‘ওয়েল ডান আব্বা’ [২০১০]।

 



সাতদিনের সেরা