kalerkantho

সোমবার । ৩ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

শিডিউল জটিলতার প্রশ্নই আসে না

এই সময়ের অন্যতম ব্যস্ত নায়ক জিয়াউল রোশান। হাতে আছে ১১টি ছবি। ৩০ নভেম্বর চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন নতুন আরেকটি ছবিতে। গতকাল দুবাই গেছেন একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। রোশানের সঙ্গে কথা বলেছেন সুদীপ কুমার দীপ

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শিডিউল জটিলতার প্রশ্নই আসে না

জিয়াউল রোশান

নতুন ছবি সম্পর্কে বলুন।

 

ছবিটির নাম এখনো ঠিক হয়নি। আমার সঙ্গে জুটি হবেন প্রিয়মণি। যৌথভাবে পরিচালনা করবেন মাসুদ মহিউদ্দিন ও মাহমুদ হাসান শিকদার। এই ছবি নিয়ে এখন পর্যন্ত আরটিভির সঙ্গে তিনটি প্রজেক্ট করছি।

আরটিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া লিমিটেডের পরিচালক সৈয়দ আশিক রহমান ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ যে তাঁরা আমাকে তাঁদের পরিবারেরই একজন করে নিয়েছেন।

 

এই মুহূর্তে ঢালিউডের সবচেয়ে ব্যস্ত নায়ক আপনি

এভাবে বলা ঠিক হবে কি না জানি না। তবে টানা কাজ করে যাচ্ছি এটুকু বলতে পারি। এখন হাতে আছে মোহাম্মদ ইকবালের ‘রিভেঞ্জ’, ‘ফাইটার’, ‘গুলশানের চামেলী’, সাইফ চন্দনের ‘ওস্তাদ’,

অনন্য মামুনের ‘সাইকো’, ‘অপূর্ব রানার ‘উন্মাদ’, ‘ইফতেখার শুভর ‘মুখোশ’, মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের ‘আশীর্বাদ’, দীপংকর

দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ ও জসিম উদ্দিন জাকিরের ‘মায়া’। তাঁরা প্রত্যেকেই গুণী নির্মাতা। মুক্তির অপেক্ষায় আছে নাদের চৌধুরী স্যারের ‘জ্বীন’। এর মধ্যে তো আরটিভির ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হলাম। সামনে আরো কিছু ছবির কথা চলছে।

এতগুলো ছবির শিডিউল মেলাতে সমস্যা হবে না?

এ বিষয়ে আমি খুব সচেতন। সব হিসাব-নিকাশ করেই প্রত্যেকটি ছবির শিডিউল দিয়েছি। এমনকি কোন ছবি কবে নাগাদ মুক্তি পাবে, তারও একটা ধারণা আগে থেকেই নিয়ে রেখেছি। পরিচালকদের সঙ্গে খুঁটিনাটি নানা বিষয়ে আলাপ করেছি। ফলে শিডিউল নিয়ে জটিলতা হওয়ার প্রশ্নই আসে না।

 

মাহিয়া মাহী, শবনম বুবলী, পূজা চেরি, ববি হক—সবার সঙ্গে ছবি করছেন। সহশিল্পী হিসেবে কাকে বেশি পছন্দ?

প্রত্যেকেই মেধাবী অভিনেত্রী। প্রত্যেকেরই ভালো ভালো ছবি আছে। দর্শকরাও তাঁদের পছন্দ করেন। কারো সম্পর্কে আলাদা করে বলার কিছু নেই। আমি বরং ভাগ্যবান যে এই সময়ের জনপ্রিয় প্রায় সব অভিনেত্রীর সঙ্গেই কাজ করার সুযোগ পাচ্ছি।

 

দুবাই থেকে ফিরবেন কবে?

৩ ডিসেম্বর একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেব। তারপর দু-এক দিন অবসর কাটিয়েই দেশে ফিরব। করোনা পরিস্থিতি আবার আতঙ্ক তৈরি করছে। আন্তর্জাতিক ফ্লাইট কবে আবার হুট করে বন্ধ হয়ে যায়! তাই ঝুঁকি না নিয়ে ৫ কিংবা ৬ ডিসেম্বরই ফেরার ইচ্ছা রয়েছে।



সাতদিনের সেরা