kalerkantho

শুক্রবার ।  ২৭ মে ২০২২ । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৫ শাওয়াল ১৪৪

বাংলালিংকের বিরুদ্ধে সমন জারি

জেমস ও মাইলসের মামলা

রংবেরং প্রতিবেদক   

১১ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেমস ও মাইলসের মামলা

মাহফুজ আনাম জেমস

১৪ বছর ধরে ব্যান্ড তারকা মাহফুজ আনাম জেমসের ছয়টি গান ও জনপ্রিয় ব্যান্ডদল ‘মাইলস’-এর দুটি গান অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করছে মুঠোফোন কম্পানি বাংলালিংক। প্রথমে মৌখিকভাবে বললেও ২০১৭ সালের ৬ আগস্ট ‘মাইলস’ তাঁদের ‘নীলা তুমি’ ও ‘ফিরিয়ে দাও’ গান দুটি ওয়েলকাম টিউন ও অন্যান্য জায়গা থেকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য আইনি নোটিশ দেয়। এ ছাড়া তিনটি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে গান দুটি সরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়। এর পরও বাংলালিংক গান দুটি সরিয়ে নেয়নি।

বিজ্ঞাপন

চলতি বছর ১৯ সেপ্টেম্বর জেমস বাংলালিংকের বিরুদ্ধে মামলা করতে আদালতে গেলে তাঁকে থানায় মামলা করার পরামর্শ দেন আদালত। পরবর্তী সময়ে ২১ অক্টোবর জেমস মামলা করতে গুলশান থানায় গেলেও মামলা নেওয়া হয়নি। জেমস ও মাইলস গতকাল ফের আদালতে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটির পাঁচজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

আসামিরা হলেন, বাংলালিংকের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার এরিক অ্যাস, চিফ কমপ্লেন অফিসার এম নূরুল আলম, চিফ ডিজিটাল অফিসার সঞ্জয় ভাগাশিয়া, চিফ করপোরেট রেগুলার অফিসার তৈয়মুর রহমান ও হেড অব ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিস অনিক ধর। গতকাল ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে মামলা হয়েছে। আদালত এ বিষয়ে জবাব দেওয়ার জন্য অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন এবং ৩০ নভেম্বরের মধ্যে তাঁদের আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন।

জেমসের ম্যানেজার রুবাইয়াৎ ঠাকুর বলেন, ‘২০০৭ সাল থেকে জেমসের গাওয়া অনেক গান বাণিজ্যিকভাবে বিনা অনুমতিতে ব্যবহৃত হয়ে আসছিল। ১৪ বছর ধরে বিষয়টি সুরাহার জন্য আইনজীবীরা চেষ্টা করে আসছিলেন, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। অবশেষে আমরা মহামান্য আদালতের কাছে গেলাম। বিশ্বাস, এই মামলার মধ্য দিয়ে যুগান্তকারী রায় আসবে। ’

বিষয়টি নিয়ে ‘মাইলস’ ব্যান্ডের শাফিন আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা মামলা করেছি। ৩০ নভেম্বরের মধ্যে অভিযুক্তদের আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এই মুহূর্তে এর বেশি কিছু বলতে চাই না। আদালতের প্রতি আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান ও আস্থা আছে। ’



সাতদিনের সেরা