kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

মূল পর্বে কেমন করবে বাংলাদেশ

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



মূল পর্বে কেমন করবে বাংলাদেশ

বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচ হারায় টি২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মূল পর্বে যাওয়া নিয়ে শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। পরের দুই ম্যাচ জিতে অবশেষে বাংলাদেশ দল গেল মূল আসরে। কেমন করবে বাংলাদেশ? জানিয়েছেন শোবিজের চার বাসিন্দা, যাঁরা ক্রিকেটের খোঁজখবর রাখেন

 

প্রবাসীদেও সমর্থন পাব

শতাব্দী ওয়াদুদ, অভিনেতা

আমরা শেষ পর্যন্ত সুপার টুয়েলভে গেলাম। যেভাবে গেলাম সেটা হতাশাজনক। তবু টাইগারদের জন্য শুভ কামনা। যে গ্রুপে পড়েছে, সেই গ্রুপের চেহারা দেখে ভালো লাগছে। অস্ট্রেলিয়াকে কিছুদিন আগেই দেশের মাটিতে হারিয়েছি। অন্য ফরম্যাটে হলেও বিশ্বকাপে আমরা দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি। তবে আমার আশঙ্কার জায়গা টপ অর্ডার আর সিনিয়র প্লেয়ার নিয়ে। সাকিব ছাড়া সেভাবে কেউ পারফরম করতে পারছেন না। যদিও শেষ ম্যাচে রিয়াদ ভালো খেলেছেন। পাওয়ার প্লে আমাদের খুব ভোগাচ্ছে। দলে কিছু বদলও দরকার। এই পর্বের বেশির ভাগ দল পেস বল ভালো খেলেন। তাই তাসকিনের জায়গায় বিকল্প হতে পারে স্পিনার। দুবাই-আবুধাবির মাঠ বড়, আমাদের দেশের মতোই গরম—এগুলো আমাদের সহায়তা করবে। অনেক প্রবাসী বাংলাদেশিরও সমর্থন পাব। দল সেমিফাইনালে যেতে পারলেই আমি খুশি। সমর্থকদের উদ্দেশে বলি, আমরা যেন সামাজিক মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত সমালোচনা করি। দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে নেমে কেউই হারতে চান না।

 

স্পিন দিয়ে কাবু করতে পারব

সাইমন সাদিক, অভিনেতা

প্রথম ম্যাচে ধাক্কা খাওয়ার পর যেভাবে স্বরূপে ফিরে আসলাম আমরা, সেটা খুবই ইতিবাচক। প্রথমেই ধাক্কা খাওয়াটা আসলে জরুরি ছিল। অতি আত্মবিশ্বাস ভালো না। যদি আমরা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতাম তাহলে সুপার টুয়েলভে এশিয়ান দলগুলোর গ্রুপে পড়তাম। যেটা হয়তো কঠিন হতো। পাকিস্তানের কথাই যদি বলি, টি২০-তে ওদের পেস আক্রমণ বিশ্বসেরা। ভারত তো ভারতই, ওদের সঙ্গে খেলা পড়লেই নানা ঝামেলা। সে তুলনায় অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা দলগুলো একই রকম। আমরা যদি সেমিফাইনালে যেতে চাই নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে খেলেই যেতে হবে। আমাদের কিন্তু ৮-৯ নম্বর পর্যন্ত ব্যাটার আছে, মুস্তাফিজের মতো পেসার আছে, সাকিব আল হাসানের মতো বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার আছে। জুনিয়রদের অনেকেই বেশ প্রতিভাবান। সব মিলিয়ে আমাদের ভালো সম্ভাবনা আছে। অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলগুলো স্পিনে দুর্বল। স্পিন দিয়ে ওদের কাবু করতে পারি।

 

ডরহীন ক্রিকেট খেলবে

মারিয়া নূর, মডেল-অভিনেত্রী ও ক্রিকেট শো সঞ্চালক

টি২০ ফরম্যাটে একটা অভ্যস্ততার ব্যাপার থাকে। আমরা বেশির ভাগ ম্যাচই খেলি দেশের মাটিতে, সব সময়ই নিজেদের অনুকূলে পিচ তৈরি করি। সেদিক থেকে বলব দল বিশ্বকাপে গিয়ে ভালো মানিয়ে নিয়েছে। দল ভালো করলে ভক্তরা মাথায় তুলে ফেলি, যখন হারে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে মিডিয়া সবাই নেতিবাচক কথা বলা শুরু করি। প্রথম ম্যাচ হার বরং বাংলাদেশের জন্য ভালোই হয়েছে, পরের দুই ম্যাচে আমরা দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। বিশ্বকাপে আমাদের লক্ষ্য সেমিফাইনাল। সেটা কী হবে জানি না, তবে ভালো কিছু প্রত্যাশা করতেই পারি। কারণ এবার সিনিয়রদের সঙ্গে তরুণরাও ভালো খেলছেন। ওমানের সঙ্গে ম্যাচে শেখ মেহেদির পারফরম্যন্স অসাধারণ। কিন্তু সাকিবের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের আড়ালে পড়ে গেছে। বৈশ্বিক আসরের জন্য তরুণদের তো গড়ে তোলাই হয়নি। তবু বলব, তাঁরা দারুণ করছেন। আমার একমাত্র শঙ্কা ছিল দলের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ, ড্রেসিং রুমের পরিবেশ। পর পর দুই জয়ের পর আশা করি ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলবেন।

 

নির্ভার থাকবে বাংলাদেশ

শ্রাবণ্য তৌহিদা, মডেল-অভিনেত্রী ও ক্রিকেট শো সঞ্চালক

টি২০ ফরম্যাটে বাংলাদেশ তুলনামূলক দুর্বল দল। তবে আমার কাছে এখনো মনে হয় বাংলাদেশ সেমিফাইনালে খেলবে। বাছাই পর্বে বাংলাদেশ দল একটু চাপে ছিল। মূল পর্বে কিন্তু বাংলাদেশকে নিয়ে চাপে থাকবে অন্য শক্তিশালী দলগুলো। কারণ এই পর্যায়ে অনেকটাই নির্ভার হয়ে খেলবে বাংলাদেশ। অন্য দলগুলোও জানে, আমরা নিজেদের সেরা খেলাটা খেলতে পারলে যেকোনো প্রতিপক্ষের কাছ থেকে জয় ছিনিয়ে নিতে পারি। বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ যেভাবে খেলে জয় পেল, এতে খেলোয়াড়রা তুমুল আত্মবিশ্বাসী থাকবেন। টি২০-তে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে দুটি ঘাটতি চোখে পড়েছে এবার—পাওয়ার প্লেতে কম রানে বেশি উইকেট হারানো, আর ডেথ ওভারে রান করতে না পারা। শেষ ম্যাচে আমরা দুই জায়গায় ভালোই উন্নতি করেছি। রানার্স আপ হওয়ায় বাংলাদেশ ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার গ্রুপে। ভক্ত হিসেবে চেয়েছিলাম ভারত-পাকিস্তানের গ্রুপেই পড়ুক বাংলাদেশ। কারণ এই দুই প্রতিবেশী টিমের সঙ্গে ম্যাচ হলে উত্তাপটা একটু বেশি পাওয়া যায়। তবে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া গ্রুপে পড়ায় খুব একটা খারাপ হয়নি। ওরা স্পিনে একটু দুর্বল। পিচটাও বেশ স্লো, এমন উইকেটে ওরা বাংলাদেশকে ভয় পাবে। জয়-পরাজয় নয়, প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট দেখতে পেলেই আমি হ্যাপি থাকব।



সাতদিনের সেরা