kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ কার্তিক ১৪২৮। ২৮ অক্টোবর ২০২১। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সাহসী হয়ে দেশছাড়া

রংবেরং ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাহসী হয়ে দেশছাড়া

২০০৩ সালে প্রথম ছবি ‘খোয়াইশ’-এ মল্লিকা শেরাওয়াতকে দেখা যায় খোলামেলা অবতারে। পরের ছবি ‘মার্ডার’ ছিল আরো সাহসী। পর পর দুই ছবিতে খোলামেলা দৃশ্যে অভিনয় করে রাতারাতি আলোচনায় চলে আসেন অভিনেত্রী, বিদ্ধ হন সমালোচনার তীরে। সেটা এতটাই যে চাপ সামলাতে না পেরে ভারত ছেড়েই চলে যান। এক সাক্ষাৎকারে মল্লিকা বলেন, ‘গণমাধ্যমের একটা অংশ আমার সঙ্গে অনৈতিক আচরণ করেছে। আমি যা বলিনি সেসব কথা আমার নামে ছেপেছে, যা দেখে অনেক মানুষেরও আমার সম্পর্কে বাজে ধারণা হয়েছে। প্রচণ্ড মানসিক চাপ তৈরি হয়েছিল। এই চাপ সামলাতেই দেশ ছেড়ে পালিয়ে বাঁচি।’

তবে গেল ১৭ বছরে বলিউড পরিস্থিতি অনেকটাই বদলেছে। ওয়েবের কল্যাণে দর্শক এখন অনেক সাহসী কনটেন্টকেও স্বাগত জানাচ্ছে। এসব দৃশ্যে অভিনয়ের জন্য অভিনেত্রীদের আর আগের মতো হেয় করা হয় না। এতে ভীষণ খুশি মল্লিকা। সাক্ষাৎকারে বলিউডে আসার পর যৌন হেনস্তার মুখোমুখি হওয়ার কথাও বলেন তিনি, “বলিউডে আসার পর আমাকে তেমন সংগ্রাম করতে হয়নি। খুব সহজেই ‘খোয়াইশ’ ও ‘মার্ডার’-এ সুযোগ পেয়ে যাই। কিন্তু এই দুই ছবি হিট হওয়ার পর অনেক বাজে প্রস্তাব পেতে থাকি। অনেক হিরোও আমাকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন। তাঁদের ধারণা, পর্দায় যেহেতু এতটা সাহসী, বাস্তবেও নিশ্চয়ই আমি তেমনই। তাঁদের জানিয়ে দিই, বলিউডে এসেছি ক্যারিয়ার গড়তে, আপস করতে নয়।’ কে কে তাঁকে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছিলেন তাঁদের নাম অবশ্য প্রকাশ করেননি মল্লিকা।

 

সূত্র : ফিল্মফেয়ার



সাতদিনের সেরা