kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

অভিনেতারা ছুটছেন টাকার পেছনে

২৮ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অভিনেতারা ছুটছেন টাকার পেছনে

অটিস্টিক শিশুদের ‘পাপের ফল’ বলায় ‘ঘটনা সত্য’ নাটকের সঙ্গে জড়িতদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ চলছেই। ২৬ জুলাই অভিনয় শিল্পী সংঘের বিবৃতিতে নাটকটির শিল্পীদের পক্ষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে সংগঠনটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিমের সাক্ষাত্কার নিয়েছেন সুদীপ কুমার দীপ

অভিনয় শিল্পী সংঘ ‘ঘটনা সত্য’ নাটকটির  অভিনয়শিল্পীদের পাশে দাঁড়িয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ উঠেছে।

আসলে আমরা শিল্পীদের পাশে দাঁড়াইনি। কোনোভাবেই এই নাটকের শিল্পীরা দায় এড়াতে পারেন না। আমরা তাঁদের সেটা জানিয়েছিও। তবে শিল্পীদের চেয়ে যাঁরা নাটকটি লিখেছেন, প্রযোজনা করেছেন এবং পরিচালনা করেছেন তাঁরাই বেশি দায়ী। বিবৃতিতে সেটা বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। একজন শিল্পী একসঙ্গে অনেক নাটকে অভিনয় করেন। তাঁর পক্ষে সব নাটকের গল্প মাথায় রাখাটাও কঠিন হয়ে পড়ে।

 

অনেকে বলছেন, নাটকটি না দেখেই নাকি আপনারা বিবৃতি দিয়েছেন?

এটা ঠিক, আমরা সম্পূর্ণ নাটকটি দেখতে পারিনি। তবে যে চ্যানেলে নাটকটি প্রচারিত হয়েছে সেখানকার একজন দায়িত্বশীল কর্তাব্যক্তির কাছে পুরো নাটকের গল্প জেনেছি। চ্যানেলটি অভিযুক্ত সংলাপ কিন্তু প্রচার করেনি! অথচ ইউটিউব চ্যানেলে প্রযোজক সেটা প্রচার করেছেন। একটা লিংক থেকে আমরা বিতর্কিত সংলাপটি দেখেছি। সেটা ভয়েস ওভার ছিল। তার পরও এমন কুরুচিকর মনমানসিকতা মেনে নেওয়া যায় না।

 

নাটকে ভয়েস ওভারে সংলাপটি এলেও মেহজাবীন কিন্তু তাঁর সংলাপে ‘পাপের ফল’ বলেছেন...

জানি না তিনি বুঝে বলেছেন নাকি না বুঝে বলেছেন। কারণ সম্পূর্ণ নাটকটির গল্প যদি মাথায় থাকত তাহলে তাঁর মতো অভিনেত্রীর মুখ দিয়ে এই সংলাপ আসার কথা নয়। আমার মনে হয় এখনকার শিল্পীদের আরো বেশি দায়িত্বশীল ও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধ হওয়া উচিত।

 

‘বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুরা পাপের ফল’ নাটকটির বিষয়বস্তু তো এটাই। গল্প পড়ার সময়ই তো শিল্পীদের বোঝা উচিত ছিল

এখনকার শিল্পীরা কাজের মানের চেয়েও সংখ্যায় বেশি বিশ্বাসী। ফলে ব্যস্ততার কারণে গল্প পড়ার হয়তো সময় পান না। নিশো বা মেহজাবীন গল্পটি আদৌ পড়েছিলেন কি না আমি জানি না। আমার বিশ্বাস, পড়লে তাঁরা নাটকটিতে অভিনয় করতেন না। এমন নাটক প্রচার হওয়াটাও দুঃখজনক।

 

অভিযোগ আছে, শিল্পীরা একসঙ্গে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের অনেক নাটকে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। যে কারণে অনেক সময় তাঁরা জানেনও না গল্প কী!

একটা প্ল্যাটফর্ম একসঙ্গে দশটি নাটকের জন্য অগ্রিম ১০ অথবা ১৫ লাখ টাকা দিয়ে দিচ্ছে। অভিনেতারা ছুটছেন টাকার পেছনে। লুফে নিচ্ছেন প্রস্তাব। নাটকগুলোর গল্প কী, নির্মাতা কে হবেন, আদৌ প্রতিষ্ঠিত কেউ থাকছেন কি না ক্যামেরা, লাইটে—সেসব দেখার সময় নেই। এটা একজন অভিনেতা হিসেবে আমার কাছে খুবই বিব্রতকর। আজকাল গল্প অনুযায়ী, চরিত্রানুযায়ী শিল্পীই নেওয়া হচ্ছে না।

 

অভিনয় শিল্পী সংঘ তাহলে কী ভূমিকা রাখছে?

আমরা গতকালও (২৭ জুলাই) ‘ঘটনা সত্য’ নাটকটির প্রযোজক, পরিচালক, অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। তা ছাড়া সব শিল্পীকে জানিয়ে দিয়েছি, পাণ্ডুলিপি না পড়ে কেউ স্পটে যাবেন না। দ্বিতীয়বার এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 



সাতদিনের সেরা