kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

চলছে হল খোলার প্রস্তুতি

নতুন ছবি মুক্তির সম্ভাবনা কম

রংবেরং প্রতিবেদক   

৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নতুন ছবি মুক্তির সম্ভাবনা কম

মার্চ থেকে সারা দেশে প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ। রোজার ঈদেও মুক্তি পায়নি কোনো ছবি। চরম দারিদ্র্যে দিন কাটছে প্রেক্ষাগৃহে কর্মরত মানুষের। তাদের ও সিনেমার ভবিষ্যতের কথা ভেবে প্রযোজক-পরিচালক ও হল মালিক সমিতি সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোরবানির ঈদে প্রেক্ষাগৃহ চালু করার।

প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, ‘আমরা প্রতি একজনে চারটি করে সিট খালি রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন কথা হচ্ছে, এই চারটি সিটের টাকা কিভাবে আসবে? এটা নিয়ে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। সরকার বেশ কিছু খাতে ভর্তুকি দিচ্ছে। সিনেমায়ও কিছুদিন ভর্তুকি দিলে এই শিল্প বাঁচবে। আশা করছি, সরকার এদিকে সুনজর দেবে।’ হল মালিক সমিতির সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দিন বলেন, ‘সিনেমা শিল্প ধ্বংস হওয়ার পথে। আর কিছুদিন হল বন্ধ থাকলে মানুষ হলে যাওয়ার কথা ভুলে যাবে। কোরবানির ঈদে না খুললে অনেক হল মালিক পেশা বদল করতে বাধ্য হবেন। আমরা সারা দেশের হল মালিকদের সঙ্গে কথা বলেছি। সবাই বাজে পরিস্থিতিতে আছেন। কর্মীদের বেতন-বোনাসও দিতে পারছেন না।’ এখন কথা হলো, হল খুললে প্রযোজকরা কোনো নতুন ছবি মুক্তি দেবেন? শাপলা মিডিয়ার ‘বিক্ষোভ’ ও ‘বিদ্রোহী’ নামে দুটি ছবি প্রস্তুত আছে। শাকিব খান, বুবলি, সানী লিওন, শ্রাবন্তীর মতো তারকা ছবি দুটিতে অভিনয় করেছেন। ছবি দুটি কি মুক্তি পাচ্ছে ঈদে? শাপলার কর্ণধার সেলিম খান বলেন, ‘অতটা বোকামি করা ঠিক হবে না। হল খুললেই কি দর্শক পাওয়া যাবে? তা ছাড়া কোনোভাবে যদি খবর ছড়ায় হলে গিয়ে করোনা বাধিয়েছেন কেউ, তাহলে তো মানুষ হলে যাওয়াই বন্ধ করে দেবে। যদি কোরবানির ঈদে হল চালু হয়, তাহলে আমার বেশ কয়েকটি পুরনো ছবি আছে, সেগুলো নতুন করে মুক্তি দিতে পারি।’

‘মেকআপ’ ও ‘সাইকো’ নামের বড় বাজেটের দুটি ছবি নির্মাণ করেছেন অনন্য মামুন। ফেব্রুয়ারিতেই শুটিং শেষ হয়েছে। পোস্ট-প্রডাকশনের কাজও শেষ। কিন্তু মামুনও চান না ঈদে ছবি মুক্তি দিতে। বলেন, ‘আমি কোনো ঝুঁকি নিতে চাই না। হল খুললেই যে দর্শক ছবি দেখবে এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। অপেক্ষা যখন করেছি, তখন আরো কিছুদিন পরিস্থিতি দেখতে চাই।’

আরটিভি প্রযোজিত ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২’ ছবি ২০ মার্চ মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে তখন পিছিয়ে যায়। এবার ঈদে মুক্তি পাবে কি না তা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন এর পরিচালক দেবাশীষ বিশ্বাস। অপু বিশ্বাস ও বাপ্পী জুটির এই ছবিটি নিয়ে দর্শকের আগ্রহ থাকলেও দেবাশীষ বলেন, ‘পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক নয়। তাই কিছু বলা যাচ্ছে না। প্রযোজক চাইলে ছবিটি মুক্তি দিতে পারেন। তবে আমার মনে হয় না তাঁরা ঝুঁকি নেবেন।’

অন্যান্য নির্মাতা-প্রযোজকের সঙ্গেও কথা বলে পরিষ্কার হয়েছে—ঈদে হল খুললেও নতুন ছবি মুক্তির সম্ভাবনা নেই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা