kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

মৃত্যুর মুখে দুইবার!

রংবেরং ডেস্ক   

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মৃত্যুর মুখে দুইবার!

তিন-চার বছর বয়স থেকেই অভিনেত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন এমিলিয়া ক্লার্ক। এমনকি পড়াশোনাও করেছেন অভিনয়ে। কিন্তু সুযোগ পাচ্ছিলেন না। প্রথম বড় সুযোগ পেলেন এইচবিওর ‘গেম অব থ্রোনস’-এ। তাঁর আজীবনের লালিত স্বপ্ন তখন পূরণের পথে। ঠিক সেই সময়ে জীবনের সবচেয়ে বড় ধাক্কাটা খেয়েছিলেন। প্রাণটাই হারাতে বসেছিলেন। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণে দুইবার চিকিৎসকের ছুরির নিচে নিজেকে সঁপে দিতে হয়েছিল।

এত দিন অবশ্য সেসব কথা গোপন রেখেছিলেন ‘ড্রাগনদের মাতা’। সম্প্রতি ‘দ্য নিউ ইয়র্কার’-এ নিজেই লিখেছেন ভয়ংকর সেই সব অভিজ্ঞতার কথা। ২০১১ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি প্রচণ্ড মাথাব্যথায় প্রায় অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এমআরআই করে জানা যায় মস্তিষ্কে ভয়াবহ রক্তক্ষরণের কথা। এ ধরনের রোগীর মধ্যে প্রতি তিনজনে একজন মারা যায়। এমিলিয়া অবশ্য বেঁচে ফিরেছেন। তবে ভয় ছিল আর অভিনয়ে ফিরতে পারবেন কি না। ‘এক রাতে নার্স এসে আমাকে নাম জিজ্ঞাসা করল। আমি মনে করতে পারলাম না। বদলে কতগুলো অর্থহীন শব্দ মুখ দিয়ে বের হলো।’

ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে ওঠেন এমিলিয়া। তবে হাসপাতাল ছাড়ার সময় বলা হয়েছিল, পুরোপুরি সুস্থ নন তিনি। লাগবে আরেকটি অস্ত্রোপচার। সেটা করতে হয় ২০১৩ সালে, ‘জিওটি’র তৃতীয় সিজনের পরে। সেবারেরটা আরো ভয়াবহ। অস্ত্রোপচারের সময় তাঁর খুলির কিছু অংশে টাইটানিয়াম লাগাতে হয়। এত কিছুর পরেও তিনি যে বেঁচে আছেন, সেটাই তাঁর কাছে বিশাল বিস্ময়ের ব্যাপার। তার চেয়েও বিস্ময়ের, তিনি ‘জিওটি’র সব সিজনেই অভিনয় করতে পেরেছেন, “আমি যে ‘থ্রোনস’-এর শেষ পর্যন্ত থাকতে পারলাম, ব্যাপারটা সৌভাগ্যের চেয়েও বেশি কিছু। দেখা যাক, সামনে জীবন আর কী কী চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসে।”

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা