kalerkantho

সোমবার । ২৮ নভেম্বর ২০২২ । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিশ্ববাজার

৮০ ডলারের নিচে জ্বালানি তেল

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈশ্বিক মন্থর প্রবৃদ্ধি ও চাহিদা কমার উদ্বেগে আন্তর্জাতিক বাজারে অব্যাহতভাবে কমে চলেছে জ্বালানি তেলের দাম। গত শুক্রবার দাম কমে আট মাসে সর্বনিম্ন হয়েছে। বাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং ইকোনমিকস জানায়, এ বছরের জানুয়ারির পর এমন দর আর দেখা যায়নি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডাব্লিউটিআই) অপরিশোধিত তেলের দাম ৪.৭৫ ডলার বা ৫.৭ শতাংশ কমে হয়েছে ৭৮.৭৪ ডলার।

বিজ্ঞাপন

সপ্তাহটিতে দাম কমেছে প্রায় ৭ শতাংশ। ব্রেন্ট অপরিশোধিত তেল ৪.৩১ ডলার বা ৪.৮ শতাংশ কমে ব্যারেলপ্রতি দাঁড়িয়েছে ৮৬.১৫ ডলার। সপ্তাহের হিসাবে ব্রেন্টের দাম কমেছে প্রায় ৬ শতাংশ। এ নিয়ে টানা চতুর্থ সপ্তাহ অপরিশোধিত তেলের উভয় বেঞ্চমার্কের দর পতনের ঘটনা ঘটল। এটি গত বছরের ডিসেম্বরের পর প্রথমবার ঘটেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ গত বুধবার সুদের হার ৭৫ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়েছে। এতে মার্কিন ডলারের দাম দুই দশকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। ক্রমবর্ধমান সুদের হার বড় অর্থনীতির দেশগুলোকে মন্দার দিকে নিয়ে যাবে, এই আশঙ্কায় তেলের চাহিদা কমে গেছে। এসব কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দামও পড়ে গেছে। এদিকে মার্কিন পেট্রল এবং ডিজেলের দামও ৫ শতাংশের বেশি কমেছে।

অপরিশোধিত তেল রপ্তানিকারক মার্কিন কম্পানি পিভিএম অয়েল অ্যাসোসিয়েটসের বাজার বিশ্লেষক তামাস ভার্গা রয়টার্সকে বলেন, ‘চীন বিশ্বের বৃহত্তম অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের ক্রেতা। কিন্তু সরকারের ‘জিরো কভিড’ নীতির কারণে চলতি বছরের পুরো সময়ে চীনের বিভিন্ন প্রদেশে লকডাউন জারি রেখেছে দেশটির সরকার। ফলে শিল্প-করাখানার উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। গত আগস্টে শিল্প উৎপাদন কমেছে। এতে একদিকে যেমন দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে ধীরগতি এসেছে, তেমনি জ্বালানি তেলের চাহিদাও কমেছে। ’



সাতদিনের সেরা