kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

অদ্ভুত সব গাড়ি

৩ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শুধু প্রয়োজনেই নয়, অনেক সময় মানুষ শখেও গাড়ি তৈরি করে। অনেক সময় সেই সব গাড়ি হয়ে ওঠে অদ্ভুত। এ রকম অদ্ভুত ৫টি গাড়ি নিয়ে লিখেছেন নাবীল অনুসূর্য

 

লিমো-প্লেন

এটা আগে ছিল বিমান। ২০০৪ সালে তাতে মার্সিডিজ বেঞ্জের চেসিস আর ডিজেল ইঞ্জিন জুড়ে দেওয়া হয় এই রূপ।

বিজ্ঞাপন

লিমো-প্লেনটা আছে মেক্সিকোর হেলিস্কু প্রদেশের গুয়াদালাহারা শহরে। ব্যবহার বলতে ভাড়া দেওয়া হয় পর্যটকদের। সে জন্য প্রতি তিন ঘণ্টায় গুনতে হয় এক হাজার ডলার।

 

কমলা গাড়ি

কমলা যদি এত বড় হয় যে সেটার ভেতর চড়ে বসা যায়! তেমনই গাড়ি হচ্ছে ‘১৯৭২ মিনি আউটস্প্যান অরেঞ্জ’। যেন এক দানবীয় কমলা! তবে গতি খুব একটা তোলা যায় না। সর্বোচ্চ ৩০ মাইল। এর চেয়ে জোরে চালালে গাড়িটা সত্যি সত্যি কমলার মতো গড়িয়ে যেতে পারে!

 

বিশ্বের ক্ষুদ্রতম গাড়ি

গাড়িটার উচ্চতা মাত্র ১০৪ সেন্টিমিটার। লম্বায় ১৩২ আর চওড়ায় ৬৬ সেন্টিমিটার। না, খেলনা নয়। সত্যিকারের গাড়ি। তাতে চড়ে করা যায় চলাফেরা। এটাই রাস্তায় চলার জন্য অনুমোদিত বিশ্বের সবচেয়ে ছোট গাড়ি। তাতে চড়ে ঘুরে বেড়ান পেরি ওয়াটকিনস। কারণ গাড়িটা যে তাঁরই।

 

কাঠের গাড়ি

এই কাঠের গাড়িটার দেখা মিলবে চীনে। ২০১৫ সালে এক কাঠমিস্ত্রি তৈরি করেছেন এই গাড়ি। সময় লেগেছে তিন মাস। খরচ হয়েছিল তিন হাজার ২০০ ডলার। সব মিলিয়ে ওজন দাঁড়িয়েছিল ৫০০ কেজি। ছোটেও খারাপ না। বৈদ্যুতিক এ গাড়ির গতি তোলা যায় ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত।

 

জুতা-গাড়ি

ভারতের কে সুধাকরের রয়েছে আজব এক শখ। বানান অদ্ভুত সব গাড়ি। সেগুলো নিয়ে আছে আস্ত একটা জাদুঘরও—‘সুধা কারস মিউজিয়াম’। সেখানকার আজব সব গাড়ির একটি এই জুতা-গাড়ি। ছবিটাও জাদুঘরের সামনেই তোলা। শুধু চার চাকার গাড়িই নয়, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ট্রাইসাইকেল বানানোর রেকর্ডটাও তাঁর।

গ্রাফিক্স : তারেক-উর-রহমান



সাতদিনের সেরা