kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

রাজস্ব নীতি পাঁচ বছর অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব বিজিএমইএর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজস্ব নীতি পাঁচ বছর অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব বিজিএমইএর

আসন্ন ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে কর ও রাজস্ব সংক্রান্ত নীতিগুলো অন্তত পাঁচ বছরের জন্য অপরিবর্তিত রাখার আহবান জানিয়েছেন তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান। গতকাল শনিবার ৩৭তম ‘ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন এবং মেইড ইন বাংলাদেশ’ সপ্তাহের লোগো উন্মোচন উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আহবান জানান। আগামী ১২-১৮ নভেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রায় এক থেকে দেড় শ ক্রেতা বাংলাদেশে আসবেন বলে আশা করছে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাপারেল ফোরাম (আইএএফ)।

বিজ্ঞাপন

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, শিল্পের সক্ষমতা ধরে রাখতে ও বিনিয়োগের জন্য অনুকূল পরিবেশ প্রয়োজন। সেই সঙ্গে আর্থিক ও অন্যান্য নীতির ধারাবাহিকতা, বিশেষ করে শুল্ককর ও মূসক হার একটি নির্দিষ্ট সময়কালের জন্য নির্ধারিত করা দরকার। কর ও রাজস্ব সংক্রান্ত নীতিগুলো অন্তত পাঁচ বছরের জন্য অপরিবর্তিত রাখলে উদ্যোক্তাদের জন্য মঙ্গলজনক হবে।

তিনি বলেন, গত চার দশকে দেশের তৈরি পোশাক রপ্তানি একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছালেও আমাদের পণ্যের কাঁচামাল বহুমুখীকরণ হয়নি। মোট পোশাক রপ্তানির প্রায় ৭৪ শতাংশই তুলার তৈরি, যা ১০ বছর আগে ২০০৮-২০০৯ অর্থবছরে ছিল ৬৯ শতাংশ, অর্থাৎ বিগত ১০ বছরে আমাদের শিল্পটির কটন নির্ভরতা বেড়েছে।

তবে বিশ্বের মোট টেক্সটাইল কনজাম্পশনের প্রায় ৭৫ শতাংশই নন-কটন, এর মধ্যে ৬৪ শতাংশই সিনথেটিক, (ম্যান মেড ফাইবার) যা বার্ষিক ৩ থেকে ৪ শতাংশ হারে বাড়ছে। বিশ্ববাজারে ভোক্তাদের ক্রমাগত জীবনযাত্রার পরিবর্তন এবং টেকসই ও পরিবেশবান্ধব পোশাকের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে নন-কটন পণ্যের চাহিদা বাড়ছে।

২০১৭ সালে ম্যান মেড ফাইবার বেসড টেক্সটাইল ট্রেডের পরিমাণ ছিল প্রায় ১৫০ বিলিয়ন ডলার, যার মধ্যে বাংলাদেশের শেয়ার ছিল মাত্র ৫ শতাংশ, অথচ আমাদের প্রতিযোগী দেশ ভিয়েতনামের দখলে ছিল ১০ শতাংশ শেয়ার। অর্থাৎ বৈশ্বিক ফাইবার চাহিদার বিচারে আমরা অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ কটনের মধ্যে সীমাবদ্ধ আছি।

বিগত দশকে আমাদের দেশে নন-কটন, বিশেষত ম্যান মেড ফাইবার খাতে কিছু বিনিয়োগ হলেও এসব বিনিয়োগ মূলত মূলধন এবং প্রযুক্তিনির্ভর। আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলোতে এই শিল্পের কাঁচামাল ‘পেট্রোকেমিক্যাল চিপস’ থাকায় এবং তাদের স্কেল ইকোনমির কারণে তারা প্রতিযোগী সক্ষমতায় অনেক এগিয়ে আছে। এই পরিস্থিতিতে নন-কটন খাতে বিনিয়োগ ও রপ্তানি উৎসাহিত করতে, নন-কটন পোশাক রপ্তানির ওপর বিশেষ প্রণোদনা প্রদান করতে হবে।

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, বিশ্ববাজারে টিকে থাকার জন্য জাহাজীকরণের সময় কমানো এবং দ্রুত পণ্য ডেলিভারি দেওয়ার সক্ষমতা অর্জন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমদানি-রপ্তানি পর্যায়ে যেসব সেবা প্রয়োজন হয় যেমন : কাস্টমস, বন্ড ও ব্যাংকিং এবং নতুন শিল্প-কারখানা স্থাপনের সময় যেসব পারমিশন ও লাইসেন্স প্রয়োজন হয় তার সহজলভ্যতা ও সহজীকরণের জন্য আরো উদ্যোগ প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ছিলেন আইএএফ সেক্রেটারি জেনারেল ম্যাথিজস ক্রিয়েটি, বিজিএমইএ সহসভাপতি শহিদুল্লাহ আজিম, বিকেএমইএ সহসভাপতি ফজলে এহসান শামিম প্রমুখ।

 



সাতদিনের সেরা