kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

রপ্তানি প্রস্তুতি তহবিল থেকে অনুদানের সুযোগ

বাণিজ্য ডেস্ক   

১ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রপ্তানি প্রস্তুতি তহবিল থেকে অনুদানের সুযোগ

চার খাতের রপ্তানি বাড়াতে যাত্রা শুরু করে রপ্তানি প্রস্তুতি তহবিল (ইআরএফ)। এটি বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন এক্সপোর্ট কমপেটিটিভনেস ফর জবস (ইসিফোরজে) প্রকল্পের একটি কর্মসূচি। ইআরএফ একটি ম্যাচিং গ্র্যান্ট কর্মসূচি, যার মোট পরিমাণ এক কোটি ৭৫ লাখ ডলার।

এই তহবিল থেকে চামড়া ও চামড়াজাত দ্রব্য (পাদুকাশিল্প, চামড়া ও অচামড়াজাত), প্লাস্টিক ও হালকা প্রকৌশল যন্ত্রপাতি এবং এমপিপিই পণ্যসামগ্রী উৎপাদনে নির্ধারিত মানদণ্ডের আলোকে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হচ্ছে, যাতে রপ্তানি বাজার বিকাশের মাধ্যমে দেশে অতিরিক্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়। এসব খাতের উদ্যোক্তারা এই তহবিল থেকে অনুদান গ্রহণের সুযোগ পাবেন। বর্তমানে ইআরএফ তহবিল তিনটি অনুদান উইন্ডোর আওতায় পাওয়া যাচ্ছে।

উইন্ডো-১ : ক্ষুদ্র ইএসকিউ অনুদান, ৪০ হাজার মার্কিন ডলার পর্যন্ত, যা ব্যাবসায়িক ও প্রযুক্তিগত সেবা গ্রহণের জন্য।

উইন্ডো-২ : বৃহৎ ইএসকিউ অনুদান, দুই লাখ ডলার পর্যন্ত ব্যবসায় ও স্থায়ী সম্পদ সংক্রান্ত ব্যয় নির্বাহের জন্য।

উইন্ডো-৩ : কভিড-১৯ এন্টারপ্রাইজবান্ধব অনুদান, প্রতিটি কভিড-১৯ অনুদানের সর্বোচ্চ পরিমাণ হবে পাঁচ লাখ ডলার। সর্বনিম্ন পরিমাণ হবে ৫০ হাজার ডলার। প্রস্তাবিত পরিকল্পনার বাস্তবায়ন মেয়াদ সর্বোচ্চ ১২ মাস হতে হবে। যেসব প্রতিষ্ঠান দেশীয় ও রপ্তানি বাজারে এমপিপিই পণ্যসামগ্রী উৎপাদনপূর্বক প্রবেশ করার জন্য সচেষ্ট হবে, তাদের জন্য কভিড-১৯ এন্টারপ্রাইজ রেসপন্স গ্র্যান্ট। এই অনুদান ডিসেম্বর ২০২২ সাল পর্যন্ত চালু থাকবে।



সাতদিনের সেরা