kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনা দেখাচ্ছে রপ্তানি ও প্রবাস আয়

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের সম্ভাবনা দেখাচ্ছে রপ্তানি ও প্রবাস আয়

করোনা মহামারিতে দেশজুড়ে যখন কঠোর লকডাউন চলছে তখন থেকে নেই রপ্তানি আয় ও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স। বরং প্রবাস আয়ে ভর করে আরো শক্তিশালী হচ্ছে দেশের রিজার্ভ। আর এই দুটি খাতকেই বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর প্রধান হাতিয়ার হিসেবে দেখছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)।

সংস্থার মতে, রপ্তানি আয় ও প্রবাস আয়ে জোরালো প্রবৃদ্ধির ওপর ভর করে মহামারির মধ্যেই ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনীতি। অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে এপ্রিলে প্রকাশিত ‘এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২১’ শিরোনামে সংস্থাটির শীর্ষ প্রতিবেদনের হালনাগাদ প্রতিবেদন সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে। এতে বাংলাদেশ নিয়ে সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে।

হালনাগাদ প্রতিবেদনে চলতি বছর বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার নিয়ে কিছু উল্লেখ না থাকলেও দক্ষিণ এশিয়াসহ পুরো উন্নয়নশীল এশিয়ার প্রবৃদ্ধির হার আগের পূর্বাভাসের চেয়ে সামান্য কমিয়ে ধরা হয়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসের তথ্য তুলে ধরে বলা হয়, এক বছরের ব্যবধানে রপ্তানি আয়ে ১৩.৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ও প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রার আয়ে ৩৯.৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির পুনরুদ্ধার অব্যাহত রয়েছে।

গত বছরের এপ্রিল শেষে এক বছরের ব্যবধানে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আদায় করা রাজস্ব আয়ে ১২.৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধির কথাও তুলে ধরেছে এডিবি। তবে এপ্রিলের শুরুতে করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ রুখতে দেশজুড়ে আরোপ করা বিধি-নিষেধের কারণে ব্যাবসায়িক কর্মকাণ্ড যে বিঘ্নিত হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

উন্নয়ন সংস্থাটি বলছে, অভ্যন্তরীণ চাহিদা কমে খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতির গতি শ্লথ হওয়ায় এপ্রিল পর্যন্ত গত অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে বাংলাদেশে গড় মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৫.৬ শতাংশ, যা পুরো বছরের পূর্বাভাস ৫.৮ শতাংশের কিছুটা কম।

সম্পূরক প্রতিবেদনে এডিবি বলেছে, সংক্রমণের নতুন ঢেউয়ের কারণে ২০২১ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় প্রবৃদ্ধি আগের পূর্বাভাসের চেয়ে কিছুটা কমে ৮.৯ শতাংশ হতে পারে, যা কিছুটা কমে পরের বছর ৭ শতাংশ হতে পারে।

ভারতের প্রবৃদ্ধি পূর্বাভাস এপ্রিলের ১১ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ ধরা হয়েছে। তবে ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি ৭.৫ হবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি দেশে নতুন করে ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় ২০২১ সালে পুরো উন্নয়নশীল এশিয়ার প্রবৃদ্ধি ৭.২ শতাংশ হবে। ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি হবে ৫.৪ শতাংশ।



সাতদিনের সেরা