kalerkantho

শুক্রবার । ৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৩ জুলাই ২০২১। ১২ জিলহজ ১৪৪২

ইউনিলিভারের পণ্য আসছে কাগজের বোতলে

♦ আগামী বছর থেকে কাপড় ধোয়ার পাউডার বাজারজাতকরণ শুরু হবে
♦ প্রথম ব্রাজিলে, তারপর ইউরোপের বাজারে পাওয়া যাবে

বাণিজ্য ডেস্ক   

২০ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউনিলিভারের পণ্য আসছে কাগজের বোতলে

পরিবেশ সচেতনতায় এবার কাগজের বোতলে পণ্য বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে বহুজাতিক কম্পানি ইউনিলিভার। প্রথমবারের মতো কাগজের বোতলে কাপড় ধোয়ার পাউডার বিক্রি করবে কম্পানিটি। আগামী বছর ব্রাজিলের বাজারে এটি উদ্বোধন করা হবে, তারপর ক্রমান্বয়ে ইউরোপে বাজারজাত করা হবে।

কম্পানি জানায়, কাগজের বোতল তৈরির জন্য নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। তৈরি হওয়া এই বোতল ২০২২ সাল থেকে কাজে লাগানো হবে। পাল্প থেকে তৈরি এই বোতল একবার ব্যবহার হওয়ার পর পরিত্যক্ত কাগজের মতো পুনর্ব্যবহার উপযোগী করা যাবে। বোতলের ভেতরে এক ধরনের পাতলা প্রলেপ থাকবে, যাতে পানি প্রবেশ করতে না পারে। ফলে এই বোতলে তরল জিনিসও রাখা যাবে।

পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়ে ইউরোপে এখন বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন জোর আওয়াজ তুলেছে। তাই ইউরোপের বাজারে কাগজের বোতল বা প্যাকেজিং ব্যবহার করতে চায় কম্পানিটি। কাপড় ধোয়ার পাউডারের পাশাপাশি হেয়ারকয়ারেও এই বোতল ব্যবহারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে।

বোতল তৈরি করেছে পালপেক্স কনসোর্টিয়াম। গত বছর পানীয় উৎপাদক কম্পানি দিয়াগো এবং পেপসিকো যুক্ত হয় ইউনিলিভারের সঙ্গে। গড়ে তোলা হয় পালপেক্স। এতে সহায়তা দেয় ভেঞ্চার ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান পাইলট লাইট। পালপেক্স কনসোর্টিয়াম গড়ে তোলা হয়েছে প্লাস্টিকমুক্ত বিভিন্ন ধরনের বোতল তৈরি করার জন্য, যা বড় কম্পানিগুলো ব্যবহার করবে। দিয়াগো এরই মধ্যে প্লাস্টিকমুক্ত কাগজের বোতল উদ্বোধন করেছে।

ইউনিলিভারের প্রধান গবেষণা ও উন্নয়ন কর্মকর্তা রিচার্ড স্ল্যাটার বলেন, ‘প্লাস্টিকের জঞ্জাল মুক্ত হওয়ার জন্য আমাদের পুরোপুরি নতুন করে চিন্তা করতে হবে। আমরা কিভাবে আমাদের পণ্য মোড়কজাত করব বা বাজারজাত করব। এ ক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তন প্রয়োজন, যা অর্জন সম্ভব শিল্পসংশ্লিষ্টদের সহযোগিতার মাধ্যমে।’

তিনি আরো বলেন, ‘পালপেক্সের কাগজভিত্তিক বোতল প্রযুক্তি আমাদের সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য রোমাঞ্চকর একটি পদক্ষেপ। এই উদ্ভাবন পণ্যে ব্যবহারের জন্য আমরা একসঙ্গে কাজ করতে পেরে আনন্দিত। আমাদের টেকসই প্যাকেজিং কৌশলে বিকল্প ম্যাটেরিয়াল একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে আমরা ভার্জিন প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার অর্ধেকে নামিয়ে আনার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি, সেই প্রতিশ্রুতি পূরণে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।’ সূত্র : এডি ডটনেট।



সাতদিনের সেরা