kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতে সুনির্দিষ্ট পথরেখা প্রয়োজন

ড. ইফতেখারুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক, টিআইবি

ফারজানা লাবনী   

৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতে সুনির্দিষ্ট পথরেখা প্রয়োজন

আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে অর্থপাচার রোধ, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি সম্পর্কে কী বলা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। এ ছাড়া আগামী অর্থবছরেও অর্থমন্ত্রী কালো (অপ্রদর্শিত অর্থ) টাকা সাদা করার সুযোগ রেখে দিলেন, যা বর্তমান সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলে দাবি করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাজেট-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী ঢালাওভাবে কালো টাকা বিনিয়োগের বিশেষ সুবিধা (ঢালাও সুবিধা) চূড়ান্ত বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করবেন না বলে স্পষ্ট করেননি, যা স্পষ্ট করা উচিত ছিল। তিনি বলেন, ‘আমি কালো টাকা সাদা করার ঢালাও সুবিধা দেওয়া বন্ধ করা এবং অতিরিক্ত কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া আয়কর আইনের স্থায়ী ধারা বিলুপ্ত করার জোরালো দাবি করছি।’

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা ও দুর্নীতি প্রতিরোধ নিশ্চিতে সুনির্দিষ্ট পথরেখা প্রণয়ন প্রয়োজন বলেও জানান। তিনি বলেন, কভিড নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য খাতের মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করলেই হবে না, বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে স্বচ্ছতা ও দুর্নীতিমুক্ত রাখতে হবে। করোনাকালীন এই সময়ে সার্বিকভাবে জনকল্যাণমুখী, অংশীদারিমূলক এবং মানুষের জীবন রক্ষায় প্রয়োজনীয় বাজেট প্রদানের আহবান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করে ৩৩ হাজার কোটি টাকা (যা মোট বাজেটের প্রায় ৭ শতাংশ) রাখা হলেও প্রয়োজনের তুলনায় এখনো তা অনেক কম। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী দেশে চিকিৎসাসেবায় সরকারের ২৬ শতাংশ খরচের বিপরীতে রোগীর খরচ হয় ৭৪ শতাংশ, যা জাতিসংঘের সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রস্তাবে স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য লজ্জাজনক।



সাতদিনের সেরা