kalerkantho

রবিবার । ৬ আষাঢ় ১৪২৮। ২০ জুন ২০২১। ৮ জিলকদ ১৪৪২

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভ্যাটের বাইরে রাখা হোক

কাজী আমিনুল হক, সভাপতি, খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি

গৌরাঙ্গ নন্দী, খুলনা   

৯ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভ্যাটের বাইরে রাখা হোক

দেশে বিপুলসংখ্যক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী রয়েছে, খুলনায়ও আছে, যারা ছোট্ট একটি দোকান ঘরে তাদের পণ্য নিয়ে বসে। ১০ ফুট বাই ৮ ফুট ঘরের দোকান, এতে সারা বছরে টার্নওভার ২০, ৩০ বা ৪০ লাখ টাকা। ৫০ লাখ টাকা টার্নওভার এদের হয় না; খুলনায় এমন ব্যবসায়ীর সংখ্যা ৩৫ হাজারেরও বেশি। এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে রক্ষার স্বার্থে তাদের ভ্যাটের আওতার বাইরে রাখা প্রয়োজন বলে মনে করেন খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি কাজী আমিনুল হক।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আবেদন জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতি মাসে ভ্যাট প্রদানের বাধ্যবাধ্যকতা এই ব্যবসায়ীদের জন্য বাড়তি বিড়ম্বনা। স্বল্প পুঁজিতে এসব উদ্যোক্তার ব্যবসা। আয়ও সামান্য। এসব মানুষের কাছে এই ভ্যাট যন্ত্রণার শামিল; এ থেকে এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে মুক্তি দেওয়া উচিত। তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের চূড়ান্ত লক্ষ্যে ধাবিত হচ্ছে। আমরা অচিরেই উন্নত দেশে রূপান্তরিত হব। দেশ হতে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা কমেছে। আশ্রয়হীন মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী ঘর উপহার দিয়েছেন। এটি অনেক বড় অর্জন। অতীতে খুলনার প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়েছে। খুলনা ছিল উন্নয়নের দিক দিয়ে পিছিয়ে; মোংলা বন্দরকে অকার্যকর করা হয়েছিল।

বর্তমান সরকার প্রথমবার যখন ক্ষমতায় আসে তখনো খুলনাকে গুরুত্ব দিয়েছে। এখন ধারাবাহিকভাবে ক্ষমতায় থাকার কারণে খুলনাকে সময়োপযোগী করে গড়ে তোলার ওপর নজর দিতে পারছেন। ইতিমধ্যে মোংলা বন্দর কার্যকর হয়েছে। স্বপ্নের পদ্মা সেতু আজ আর স্বপ্ন নয়, বাস্তব। এতে এই অঞ্চলে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে, মোংলা বন্দর আমদানি-রপ্তানিতে আরো ভূমিকা রাখতে পারবে; এমনকি প্রতিবেশী দেশ ভারত, নেপাল ও ভুটানও এই বন্দর ব্যবহার করার ক্ষেত্রে তাদের আগ্রহ দেখিয়েছে। ফলে অবিলম্বে খান জাহান আলী বিমানবন্দরের কাজ সমাপ্ত করা উচিত। এখানে আন্তর্জাতিক মানের একাধিক হোটেল গড়ে তোলা উচিত। পর্যটন করপোরেশন এ ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে পারে।’