kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

সিআরটি থেকে যেভাবে এলো স্মার্ট টিভি

বাণিজ্য ডেস্ক   

২২ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যত পরিবর্তনই আসুক না কেন, ঘরে এখনো টেলিভিশন যন্ত্রের কদর আছে। সিআরটির যুগ পেরিয়ে এখন আমরা স্মার্ট টিভির যুগে প্রবেশ করেছি। ভবিষ্যতে হয়তো আরো পরিবর্তন আসবে। অ্যান্টেনার যুগ শেষ হয়েছে আরো আগেই। তারপর এলো স্যাটেলাইট সংযোগের যুগ। আর এখন টিভি শুধু টেলিভিশন কেন্দ্র থেকে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠান দেখার যন্ত্র নয়। ইন্টারনেটে যুক্ত হয়ে ইউটিউব, ফেসবুক, নেটফ্লিক্স ইচ্ছামতো দেখার সুবিধা আছে স্মার্ট টিভিগুলোয়। অর্থাৎ টেলিভিশনের ব্যবহারের ধরনে পরিবর্তন এসেছে। শুধু বিদেশি ব্র্যান্ডের টিভিই নয়, দেশি কম্পানিগুলোও এসব প্রযুক্তি আয়ত্ত করছে।

১৯৯৬ সালে জাতিসংঘের এক প্রস্তাবের মাধ্যমে ২১ নভেম্বরকে টেলিভিশন দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়। মূলত ১৯২৬ সালের এই দিনে টেলিভিশন উদ্ভাবন করেন ব্রিটিশ বিজ্ঞানী জন লগি বেয়ার্ড। তাঁর এই উদ্ভাবনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই ১৯৯৬ সালে জাতিসংঘ এই দিনটিকে বিশ্ব টেলিভিশন দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়।

বেয়ার্ড ১৯২৬ সালে প্রথম টেলিভিশন আবিষ্কার করেন এবং সাদাকালো ছবি দূরে বৈদ্যুতিক সম্প্রচারে পাঠাতে সক্ষম হন। এরপর রুশ বংশোদ্ভূত প্রকৌশলী আইজাক শোয়েনবারগের কৃতিত্বে ১৯৩৬ সালে প্রথম টিভি সম্প্রচার শুরু করে বিবিসি। টেলিভিশন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চালু হয় ১৯৪০ সালে।

ডিসপ্লে বা প্রদর্শনীর প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করে টেলিভিশনকে বিভিন্নভাবে ভাগ করা যায়। যেমন—সিআরটি, প্লাজমা, এলসিডি, এলইডি ইত্যাদি। সম্প্রচার থেকে প্রদর্শন পর্যন্ত টেলিভিশনের সম্পূর্ণ পদ্ধতিকে আবার তিন ভাগে ভাগ করা যায়—অ্যানালগ টেলিভিশন (সনাতন পদ্ধতি), ডিজিটাল টেলিভিশন ও এইচডিটিভি। প্রথম রিমোটযুক্ত টিভি বাজারে আসে ১৯৫০ সালে। ১৯৫৩ সালে জাপানি কম্পানি শার্প কাঠের ফ্রেমে ১৪ ইঞ্চির টেলিভিশন বাজারজাত করে, যা বেশ ব্যয়বহুল ছিল। প্রথম রঙিন টেলিভিশন আসে ১৯৫৪ সালে। এর পর্দা ছিল ১৪ ইঞ্চি। ১৯৮১ সালে জাপানিরা প্রথমবারের মতো এইচডিটিভি বা হাইডেফিনেশন টিভি বানায়। ১৯৯৮ সালে বিশ্ববিখ্যাত জাপানি ইলেকট্রনিকস কম্পানি সনি বাজারে আনে সনি এফডি ট্রিনিট্রন ওয়েগা। অনেক চ্যানেলের সমারোহসহ এই টিভি আকারগত এবং অন্য বিভিন্ন দিকে উন্নত করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা