kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

সুবিধাবঞ্চিতদের কাছে ব্যাংকিং সুবিধা পৌঁছে দিচ্ছে রকেট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুবিধাবঞ্চিতদের কাছে ব্যাংকিং সুবিধা পৌঁছে দিচ্ছে রকেট

২০১০ সালের ২৮ এপ্রিল বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা পরিচালনার অনুমতি লাভ করে বেসরকারি ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। পরবর্তী সময় ২০১১ সালে ৩১ মার্চ দেশের প্রথম মোবাইল ব্যাংকিং হিসেবে এর কার্যক্রম শুরু করে। শুরুতে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সেবার নাম ছিল ‘ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং’। পরবর্তী সময় ‘রকেট’ নামে নতুন ব্র্যান্ডিং করা হয়। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ‘রকেট’ হলো উন্নত প্রযুক্তির সাহায্যে দ্রুত এবং সর্বোচ্চ সুরক্ষার সঙ্গে গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করার প্রতীক। রকেটে লেনদেন শতভাগ নিরাপদ। বর্তমানে রকেটের নিবন্ধিত প্রাহকসংখ্যা প্রায় দুই কোটি।

জানা যায়, মোবাইল ব্যাংকিং হচ্ছে শাখাবিহীন ব্যাংকিংব্যবস্থা, যার মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর কাছে ব্যাংকিং সুবিধা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং রকেটে মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজনের প্রায় সব ধরনের আর্থিক লেনদেন সুবিধা রয়েছে। বর্তমানে রকেটের মাধ্যমে এজেন্টের মাধ্যমে গ্রাহক নিবন্ধন, স্ব-নিবন্ধন, টাকা জমা, টাকা উত্তোলন, টাকা পাঠানো, মোবাইল রিচার্জ, রেমিট্যান্স প্রদান, বেতন-ভাতা বিতরণ, মার্চেন্ট পেমেন্ট, বিল-পে, ব্যাংকের অ্যাকাউন্টের সঙ্গে লিংক, ব্যালান্স বা স্টেটমেন্ট অনুসন্ধান, পিন পরিবর্তন, অন্য ব্যাংক থেকে টাকা আনার সুবিধা, টোল প্রদান এবং কালেকশন সেবা মিলছে।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, ডিজিটাল লেনদেনে প্রায়ই প্রতারণা ও জালিয়াতির কথা শোনা গেলেও রকেটের ক্ষেত্রে এ ধরনের সম্ভাবনা নেই। গ্রাহকের নিরাপত্তার জন্য রকেট অ্যাকাউন্ট খোলার সময় একটি অতিরিক্ত চেক ডিজিট যুক্ত করা হয়। এ ছাড়া রকেটের প্রতিটি লেনদেন পিন দ্বারা ভেরিফায়েড। তাই রকেটে লেনদেন শতভাগ নিরাপদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা