kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

ইউরোপ-আমেরিকায় তার রপ্তানি করবে আর আর ইম্পেরিয়াল

দেশের প্রথম শ্রেণির কেবল কম্পানিগুলোর মধ্যে আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড অন্যতম। আমরা সব সময়ই গ্রাহকদের ভালো মানের কেবল দিয়ে থাকি। কেননা ভালো মানের কেবল না হলে বিভিন্নভাবে দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা থাকে। আমাদের দেশে অনেক অগ্নিকাণ্ড হয় যার বেশির ভাগ ত্রুটির কারণ হিসেবে দেখা যায় যে নিম্নমানের কেবল

মাসুদ রুমী   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে




ইউরোপ-আমেরিকায় তার রপ্তানি করবে আর আর ইম্পেরিয়াল

মাহবুব হোসেন মিরদাহ্, পরিচালক ও সিইও আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড

দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদার পাশাপাশি বিদেশেও তার রপ্তানি করতে চায় আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড। ইউরোপ, আমেরিকা ও যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি সম্ভাবনাময় বাজারে পণ্য রপ্তানির কথা জানালেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাহবুব হোসেন মিরদাহ্। দেশের বৈদ্যুতিক তারের বাজার সম্ভাবনাসহ নানা দিক নিয়ে সম্প্রতি তিনি কালের কণ্ঠ’র সঙ্গে কথা বলেন।

আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড হচ্ছে ইম্পেরিয়াল গ্রুপ বাংলাদেশ ও রাম রত্না গ্রুপ ইন্ডিয়ার মধ্যে একটি যৌথ উদ্যোগের কম্পানি। যাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে তামার তার, তামার স্ট্রিইপ, বাস বার, লো ভোল্টেজ ও এইচটি কেবল, বৈদ্যুতিক পাখা, মোটর ও ইলেকট্রিক পণ্যে ব্যবহূত বিভিন্ন সাইজের সুপার এনামেল্ড তামার তার এবং ইলেকট্রিক পণ্য তৈরি, প্রক্রিয়াকরণ, বিক্রয় এবং বিতরণ করা। রাম রত্না গ্রুপ ভারতের শীর্ষস্থানীয় একটি তার ও কেবল উত্পাদন কম্পানি। প্রতিবছর প্রতিষ্ঠানটি ৮০ হাজার মেট্রিক টন তামা প্রক্রিয়াজাত করে বলে জানালেন মাহবুব হোসেন মিরদাহ্। তিনি বলেন, ‘দেশের প্রথম শ্রেণির কেবল কম্পানিগুলোর মধ্যে আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড অন্যতম। আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড সব সময়ই গ্রাহকদের ভালো মানের কেবল দিয়ে থাকি। কেননা ভালো মানের কেবল না হলে বিভিন্নভাবে দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা থাকে। আমাদের দেশে অনেক অগ্নিকাণ্ড হয় যার বেশির ভাগ ত্রুটির কারণ হিসেবে দেখা যায় যে নিম্নমানের কেবল।’

তিনি বলেন, ‘আমরা মানসম্মত কেবল বাজারজাত করি। আমরা পণ্য উত্পাদনের প্রতিটি স্তরে গুণগত মানের বিষয়টি নিশ্চিত করি। আমাদের ইচ্ছা আছে দেশের চাহিদা মিটিয়ে কেবলসামগ্রী বিদেশে রপ্তানি করব।’

আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালসের সিইও বলেন, ‘সাত হাজার কোটি টাকার (উত্পাদন ও আমদানি) তারের বাজারে আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালসের ৫ শতাংশ মার্কেট শেয়ার। সরকারের ঘরে ঘরে বিদ্যুত্ এজেন্ডার আওতায় আগামীতে তারের চাহিদা আরো বাড়বে। আর এ ক্ষেত্রে আমাদের মার্কেট শেয়ার বেড়ে ১০ শতাংশ হবে বলে আশা করি।’

তিনি জানান, কেবল ইন্ডাস্ট্রি গড়ে উঠেছে ডমেস্টিক, ট্রান্সমিশন এবং শিল্প—এই তিন খাতকে কেন্দ্র করে। এই চাহিদা পূরণে দেশে শতাধিক উত্পাদক কাজ করছে। দেশে প্রথম সারির কয়েকটি প্রতিষ্ঠান মানসম্মত তার উত্পাদন করছে।

ইউরোপ, আমেরিকা ও যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি সম্ভাবনাময় বাজারে পণ্য রপ্তানির কথা জানালেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও)। তিনি বলেন, ‘তারের বিশ্ববাজার বিরাট। আমরা যৌথ উদ্যোগের কম্পানি হওয়ায় সুবিধাজনক অবস্থায় আছি। কারণ আমাদের সহযোগী কম্পানির বিশ্বেও ৯০টি দেশে কার্যক্রম আছে। আমাদের কাছে ইউএল এবং ভিডিই সনদ আছে যা ইউকে, ইউএসএ এবং ইউরোপের বাজারে রপ্তানির জন্য প্রয়োজন। এসব দেশে বর্তমানে হোম অ্যাপ্লায়েন্সেস পণ্য রপ্তানি করছে দেশের প্রথম সারির বৈদ্যুতিক পণ্য উত্পাদনকারী প্রতিষ্ঠান। খুব শিগগিরই আমরা তার রপ্তানি করতে পারব বলে আশা করি।’

আমাদের পণ্যের উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হচ্ছে কেবলের সুরক্ষার জন্য প্যাকেটজাত করে বিপণন করা হয়। এ ছাড়া প্রতিটি কেবলই অগ্নিশিখা প্রতিরোধক (এফআর) এবং স্কিন কোটিং কেবল তৈরিতে লন্ডন মেটাল এক্সচেঞ্জ (এলএমই) দ্বারা সত্যায়িত কপার ক্যাথড ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ‘আমাদের পণ্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট-স্কিন কোটিং এফআর কেবল, এলএমই রেজিস্টার্ড কপার। আমরা বাংলাদেশে প্রচুর বিনিয়োগ করেছি। আমরা আমাদের উত্পাদন সক্ষমতা দ্বিগুণ করতে যাচ্ছি। এতে আরো বিনিয়োগ হবে।’ যোগ করেন মাহবুব হোসেন মিরদাহ্।

তারের বাজারের প্রধান চ্যালেঞ্জ ভুয়া ও মানহীন তার। বাজারে সরকারি সংস্থাগুলোর নজরদারি বাড়ানোর দাবি জানিয়ে মাহবুব হোসেন মিরদাহ্ বলেন, ‘যারা নকল ও নিম্নমানের পণ্য তৈরি করে ভোক্তাদের ঠকাচ্ছে এবং অগ্নি দুর্ঘটনার মুখে ঠেলে দিচ্ছে তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে। কেবলসশিল্পের জন্য টেস্টিং ল্যাব বাড়াতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতে আমরা অ্যালুমিনিয়াম কেবল উত্পাদন করব। সরকারের বৈদ্যুতিক সংযোগ মাটির নিচে নিয়ে যাওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে। সাবস্টেশনের জন্য তার উত্পাদনে শূন্য শুল্ক সুবিধা থাকলেও এ ধরনের উচ্চমানের কেবলের কাঁচামাল আমদানিতে নানা অসংগতি আছে, যা দূর করা প্রয়োজন।’

আর আর ইম্পেরিয়াল ইলেকট্রিক্যালসের শীর্ষ নির্বাহী বলেন, ‘আমরা অদূর ভবিষ্যতে অ্যালুমিনিয়াম তার উত্পাদন করার পরিকল্পনা করছি। আমরা সেই কেবলগুলো উত্পাদন করতে আমাদের কারখানার সক্ষমতা বাড়াচ্ছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা