kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

আয়কর মেলা শুরু কাল

চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



আয়কর মেলা শুরু কাল

আয়কর মেলার শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগ থেকেই মেলা প্রাঙ্গণে ভিড় লেগে যায় সেবাগ্রহীতাদের। ছবি : শেখ হাসান

২০১০ সালে সীমিত পরিসরে প্রথমবারের মতো দেশে আয়কর মেলা আয়োজন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। সম্পূর্ণ নতুন ধারণার এ মেলা করদাতাদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলে। এর পর থেকে প্রতিবছরই এ মেলা আয়োজনের মধ্য দিয়ে এনবিআর করদাতা সংগ্রহে নামে, রিটার্ন জমা ও কর পরিশোধের সুযোগ করে দেয়। এখানে করসংক্রান্ত তথ্যও সরবরাহ করা হয়। এবারে সাত দিনব্যাপী আয়কর মেলা সারা দেশে শুরু হচ্ছে ১৪ নভেম্বর থেকে।

একসময়ে এ দেশে রাজস্ব কর্মকর্তা আর করদাতার সম্পর্ক ছিল ভয়, আতঙ্ক আর লুকোচুরির। আয়কর মেলা চিরচেনা এ রাজস্ব সংস্কৃতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন এনেছে। আয়কর মেলায় রাজস্ব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা হাসিমুখে করদাতাদের সেবা দিয়ে থাকেন। প্রতিবছর সেবার মান বাড়াতে চেষ্টা থাকে এনবিআরের। অন্যদিকে মেলা থেকে সেবা নিয়ে যাওয়া বেশির ভাগ করদাতা পরের বছর আবারও মেলায় আসেন সেবা নিতে। পরিচিতজনদের আসতে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

এবারে সব বিভাগীয় ও জেলা শহরে এবং ১০০টির বেশি উপজেলায় এ মেলা আয়োজন করা হবে। এবারের আয়কর মেলায় করদাতাদের প্রযুক্তি ব্যবহারে উত্সাহিত করতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে। এনবিআরসংশ্লিষ্টরা দাবি করেছেন, এবারে আয়কর মেলায় আসা সেবাগ্রহীতা, রিটার্ন জমা, ইটিআইএন গ্রহণ এবং কর আদায়ের পরিমাণ অতীতের যেকোনো সময়ের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে। প্রতি করবর্ষের নিয়মিত রিটার্ন জমার শেষ সময় ৩০ নভেম্বরের আগে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়। প্রতি করবর্ষে গড়ে ২২ লাখ রিটার্ন জমা হয়।

১৪ নভেম্বর শুরু হওয়া আয়কর মেলা সাফল্যের সঙ্গে সম্পন্ন করতে এনবিআর ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। প্রত্যেক কর অঞ্চল থেকে মেলায় করদাতাদের সেবা দিতে এবং সেবা প্রদানে কোনো হয়রানি করা হচ্ছে কি না তা নজরদারিতে একাধিক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া রাজস্ব বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নিজেরা মেলা প্রাঙ্গণে উপস্থিত থেকে সার্বিক কার্যক্রম পর্যবেক্ষণে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এনবিআর আয়োজিত এবারের মেলায় পুরনো পদ্ধতিতে হাতে লিখে রিটার্ন জমা দেওয়ার সঙ্গে অনলাইনেও রিটার্ন জমা দেওয়ার সুযোগ থাকবে। মেলায় একই ছাদের নিচে রিটার্ন দাখিল ও কর পরিশোধের সুযোগ থাকবে। রাজস্বসংক্রান্ত কোনো বিষয় জানার প্রয়োজন হলে মেলায় উপস্থিত রাজস্ব কর্মকর্তাদের কাছ থেকে তা জেনে নিতে পারবেন। আয়কর মেলায় কোনো করদাতাকে হয়রানি করা হলে দায়ী রাজস্ব কর্মকর্তাকে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে। রাজধানীর আয়কর মেলা বেইলি রোডে অফিসার্স ক্লাবে অনুষ্ঠিত হবে।

 

১০ বছরে মেলা

২০১০ সালে এনবিআর আয়োজিত প্রথমবারের আয়কর মেলায় ৬০ হাজার ৫১২ জন মানুষ সেবা নিতে আসেন। প্রতিবছরই আয়কর মেলায় আসা সাধারণ মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। ২০১১ সালে আয়কর মেলায় সেবাগ্রহীতার সংখ্যা বেড়ে ৭৫ হাজার ১২০ জন হয়। এর পরের বছর এ সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে লাখে পৌঁছায়। ২০১২ সালে তিন লাখ ৪৬ হাজার ৮৬৭ জন, ২০১৩ সালে পাঁচ লাখ ১০ হাজার ১৪৫ জন, ২০১৪ সালে ছয় লাখ ৪৯ হাজার ১৮৫ জন, ২০১৫ সালে সাত লাখ ৫৭ হাজার ৭৫৪ জন, ২০১৬ সালে ৯ লাখ ২৮ হাজার ৯৭৩ জন সেবা গ্রহণ করেন।

গত বছর (২০১৮) এবং তার আগের বছর (২০১৭) আয়কর মেলার বিভিন্ন তথ্যের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত বছর আয়কর মেলায় সেবাগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ১৬ লাখ ৩৬ হাজার ২৬৬, যা তার আগেরবারের তুলনায় ৩৯.৯০ শতাংশ বেশি। রিটার্ন জমা হয় চার লাখ ৮৭ হাজার ৫৭৩। এ ক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয় ৪৫.৩৩ শতাংশ। আয়কর আদায় হয় দুই হাজার ৪৬৮ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার ৮৯৫ টাকা। আদায়ে প্রবৃদ্ধি হয় ১১.৩৫ শতাংশ। নতুন ইটিআইএন ৩৯ হাজার ৭৪৩। এ ক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয় ৩৫.৮৫ শতাংশ।

 

কর কী

কর বা ট্যাক্স শব্দটি এসেছে লাতিন ‘ট্যাক্সো’ থেকে। যার অর্থ মূল্য আদায় করা। অভিধানে কর শব্দের অর্থ হলো রাষ্ট্র কর্তৃক বাধ্যতামূলকভাবে আদায়কৃত আর্থিক অবদান, যা কোনো অর্থদণ্ড নয়, তবে এ হলো পূর্বনির্ধারিত পদ্ধতিতে বেসরকারি খাত থেকে সরকারি খাতে বাধ্যতামূলক স্থানান্তরিত সম্পদ। কর সরকারি রাজস্বের একটি প্রধান উত্স। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সরকারের ব্যয় নির্বাহের জন্য জনগণের কাছ থেকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে করা সংগ্রহ করা হয়।

 

বিশ্বে কর ব্যবস্থার প্রচলন

বিশ্বে প্রথম কর ব্যবস্থার প্রচলন ঘটে প্রাচীন মিসরে খ্রিস্টপূর্ব ৩০০০-২৮০০ শতকে। বাইবেলসহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক সূত্র থেকে এ তথ্য জানা যায়। বাইবেলের ৪৭ অধ্যায়ের ৩৩ নম্বর শ্লোকে বলা হয়, মিসরের রাজারা প্রজাদের কাছ থেকে কর সংগ্রহ করতেন। ফারাওরা তাঁদের কমিশনারদের পাঠাতেন আবাদ হওয়া শস্যের এক-পঞ্চমাংশ কর হিসেবে সংগ্রহ করার জন্য। কর নিয়ে একটি বহুল প্রচলিত প্রবাদ হচ্ছে—‘কোনো কিছুই নিশ্চিত নয়, তবে মৃত্যু ও কর অনিবার্য।’

 

বাংলাদেশে শুরু যেভাবে

বাংলাদেশ উত্তরাধিকারসূত্রে ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি শাসনব্যবস্থা থেকে তার করারোপ পদ্ধতি পেয়েছে। উপমহাদেশে ১৮৫৭ সালে সিপাহি বিদ্রোহজনিত ব্যয় ঘাটতি পূরণের জন্য ১৮৬০ সালে ব্রিটিশরা প্রথম আয়কর চালু করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর আয়কর আইন ১৯২২-এর অধীনে আয়কর ধার্য করা হয়। ওই আইন ১৯২১ সালে নিয়োজিত সর্বভারতীয় আয়কর কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে প্রণীত হয়েছিল। বর্তমানে আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪-এর অধীনে বাংলাদেশে আয়কর আরোপ করা হয়। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা