kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

কমিটি বাতিল দাবি নিহত নেতার মায়ের

বগুড়া অফিস   

২৪ নভেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কমিটি বাতিল দাবি নিহত নেতার মায়ের

ছাত্র-গণজমায়েতে বক্তব্য দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন নিহত ছাত্রলীগ নেতা তাকবির ইসলাম খানের মা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বগুড়ায় ছাত্রলীগের সদ্যোঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে বুধবার শহরের সাতমাথা মুজিব মঞ্চে ছাত্র-গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে হাজির হয়ে নতুন কমিটির একাংশের সঙ্গে ছেলের হত্যাকারীদের মহড়ার বর্ণনা দিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন নিহত ছাত্রলীগ নেতা তাকবির ইসলাম খানের মা। তিনি খুনিদের আশ্রয় দেওয়া এই কমিটি বাতিল করে প্রকৃত ছাত্রলীগের নেতাদের সমন্বয়ে কমিটি গঠনেরও দাবি জানান।

গত বছরের ১১ মার্চ শহরের সাতমাথায় নিজ দলের নেতাকর্মীদের হামলায় নিহত জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক তাকবির ইসলাম খানের মা আফরোজা বেগম সমাবেশে কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘ওই দিন সরকারি আজিজুল হক কলেজ ছাত্রলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক (পরে বহিষ্কৃত) আব্দুর রউফের নেতৃত্বে তাকবিরকে খুন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

সেই রউফ জামিনে ছাড়া পেয়ে জেলা ছাত্রলীগের সদ্যোঘোষিত কমিটির নেতাদের সঙ্গে মহড়া দিয়ে বেড়াচ্ছে। জেলা ছাত্রলীগের নেতারাই যদি খুনিদের আশ্রয় দেয়, তাহলে অন্য নেতাকর্মীরা তাদের কাছে নিরাপদ নয়। এ কারণে খুনিদের আশ্রয় দেওয়া নেতাদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করা উচিত। ’

ছাত্র-গণজমায়েতকে কেন্দ্র করে বগুড়া শহরে ব্যাপক নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে দুজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ থানা ও ডিবি পুলিশের বিপুলসংখ্যক সদস্য জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনেসহ পুরো সাতমাথা চত্বরে অবস্থান নেয়।

সমাবেশে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম মোহন, জেলা যুবলীগের সভাপতি শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডাবলু, অধ্যক্ষ শহীদুল ইসলাম দুলু, মাশরাফি হিরো, মাইসুল তোফায়েল কোয়েল, অসীম কুমার রায় প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে নবগঠিত জেলা কমিটির সভাপতি সজীব সাহা ও সাধারণ সম্পাদক আল মাহিদুল ইসলাম জয় স্বাক্ষরিত পৃথক দুটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বগুড়া সদর উপজেলা ছাত্রলীগ ও সরকারি আজিজুল হক কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

 

 



সাতদিনের সেরা