kalerkantho

রবিবার । ৪ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বামনায় ভাতার টাকা তোলেন ইউপি সদস্য

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবন্ধী আবুল বাসারের ভাতার টাকা সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যের ফোন নম্বরে আসে প্রতি মাসে। অথচ আবুল বাসার জানেন না তিনি ভাতার জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেওয়া হলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। পরে বরগুনা আদালতে মামলা করে ভুক্তভোগী পরিবারটি।

বিজ্ঞাপন

ঘটনাটি ঘটেছে বরগুনার বামনা উপজেলার বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া গ্রামে। ভাতার টাকা আত্মসাৎ করার প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার বামনা প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে পরিবারটি।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মো. আবুল বাশার মাতুব্বর। তিনি বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য।

মানববন্ধনে প্রতিবন্ধী আবুল বাসারের স্ত্রী আমেনা বেগম অভিযোগ করেন, ইউপি সদস্য আবুল বাশার মাতুব্বর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে অনলাইনে তাঁর স্বামীর ভাতার জন্য আবেদন করিয়ে দেন; কিন্তু ওই ইউপি সদস্য তাঁর নিজের নামে রেজিস্ট্রেশন করা একটি ফোন নম্বর অনলাইন আবেদন ফরমে দেন, যে নম্বরটি তাঁর ছেলে ব্যবহার করত। চারবার ওই নম্বরে ভাতার টাকা গেলেও তিনি সব টাকা আত্মসাৎ করেন। এক পর্যায়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার দপ্তরে খোঁজ নিতে গেলে বিষয়টি ধরা পড়ে। পরে এ ঘটনার বিচার এবং তাঁদের সমুদয় ভাতা ফেরত পেতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য আবুল বাশার মাতুব্বর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমার ফোনে একটি ভাতার টাকা আসত। তবে টাকাটি কার আমি প্রথমে জানতাম না। তবে জানার পর কয়েক দিন আগে তাঁদের টাকা ফেরত দিয়েছি। ’

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মিজান সালাউদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় ওই ভুক্তভোগীর স্ত্রী একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কর্তৃক তিন সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। দুই-এক দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা পড়বে।

 

 



সাতদিনের সেরা