kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সুজানগরে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন

দুই নেতার অনুসারীদের পাল্টাপাল্টি

পাবনা প্রতিনিধি   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দুই নেতার অনুসারীদের পাল্টাপাল্টি

পাবনার সুজানগরে আওয়ামী লীগ সভাপতির অনুষ্ঠানে লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা করে সাধারণ সম্পাদকের সমর্থকরা। গতকাল দুপুরে উপজেলা সদর থেকে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উদযাপনে পাবনার সুজানগরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার দুপুর ২টার দিকে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সুজানগর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব এবং সাধারণ সম্পাদক শাহীনুজ্জামান শাহীন অনুসারীরা আলাদাভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপনের আয়োজন করে।

বিজ্ঞাপন

উপজেলা পরিষদে প্রথমে কেক কাটা শেষ করে শাহীনুজ্জামান শাহীনের সমর্থক নেতাকর্মীরা চলে যান। পরে কেক কাটাসহ অন্যান্য কর্মসূচি পালন করেন আব্দুল ওহাব ও তাঁর সমর্থকরা। এ অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির তথ্য ও গবেষণা সদস্য কামরুজ্জামান উজ্জ্বল উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষ করে কামরুজ্জামান উজ্জ্বল শারদীয় দুর্গপূজা উপলক্ষে পাবনা-২ নির্বাচনী এলাকার মন্দিরগুলোতে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার জন্য ব্যক্তিগত কার্যালয়ে যাচ্ছিলেন। নিজ কার্যালয়ে যাওয়ার পথে লাঠিসোঁটা নিয়ে সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীনের অনুসারী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ফেরদৌস আলম ফিরোজের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা স্লোগান দেন। এ নিয়ে কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে কামরুজ্জামান উজ্জ্বলের অনুসারীদের ওপর লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলার চেষ্টা করে। এ সময় ধাওয়াধাওয়ির ঘটনা ঘটে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি।

এ বিষয়ে কামরুজ্জামান উজ্জ্বল বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে আমাদের ওপর হামলার চেষ্টা করা হয়। আমার ক্লিন ইমেজ নষ্ট করার জন্য এই অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীনুজ্জামান শাহীন এলাকায় ছিলেন না। তবে তাঁর অনুসারীরা হামলার চেষ্টা করেছে বলে মনে করছি। ’

আব্দুল ওহাব বলেন, কামরুজ্জামান উজ্জ্বলের কর্মকাণ্ডে সুজানগরের কিছু মানুষ ঈর্ষান্বিত। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনেও তারা এই বিশৃঙ্খলা ঘটিয়েছে। একটা ইস্যু তৈরি করে কামরুজ্জামান উজ্জ্বলকে সবার কাছে হেয় করার চেষ্টা করছে একটি পক্ষ।

পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ফেরদৌস আলম ফিরোজ বলেন, ‘ওই সময় আমি সেখানে ছিলাম না। আমার নেতৃত্বে হামলার অভিযোগ সঠিক নয়। ’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন বলেন, ‘শুনেছি কামরুজ্জামান উজ্জ্বলের সঙ্গে বেশ কিছু মানুষের ঝামেলা হয়েছে, আমি জরুরি কাজে ঢাকায় রয়েছি। বিষয়টি উজ্জ্বল সাহেবের পার্সোনাল কারণে আমি এখানে কোনো হস্তক্ষেপ করিনি। আর আমার কোনো অনুসারী কেউ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। ’

সুজানগর থানার ওসি আব্দুল হান্নান বলেন, আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের লোকজন হট্টগোল করছে এমন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। তবে কেউ থানায় অভিযাগ দেয়নি।



সাতদিনের সেরা