kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাজশাহী

শতাধিক ব্যক্তিকে ভুয়া নিয়োগপত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীতে ভুয়া নিয়োগপত্র ও জাল সনদপত্র দিয়ে দুই থেকে পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রনি রাজ হোসেন নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। তাঁর খপ্পরে পড়ে শতাধিক যুবক সর্বস্ব হারিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাকরির আশায় গচ্ছিত সব অর্থ তুলে দিয়ে অনেকেই এখন টাকা ফেরত পেতে বিভিন্ন কার্যালয়ে ঘুরছেন। কেউ করেছেন মামলাও।

বিজ্ঞাপন

এমনকি তিনি শহরে রেস্টুরেন্ট খুলে ব্যবসা করলেও কর্মরত যুবকদের বেতন দিচ্ছেন না। বেতন না পেয়ে ওই রেস্টুরেন্টের এক যুবক রাজশাহী রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী সমিতির কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।   

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অভিযুক্ত রনি রাজ হোসেন রাজশাহী নগরীর সাগরপাড়া এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। তবে তাঁর গ্রামের বাড়ি নওগাঁর বদলগাছী থানার পাহাড়পুড় এলাকায়। তিনি ওই এলাকার আব্দুল মজিদের ছেলে। প্রতারণার টাকায় তিনি অল্প সময়ে কোটিপতি বনে গেছেন। একাধিক বিয়ে করায় তাঁর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলাও হয়েছে।

রনি রাজ হোসেনের ফেসবুক আইডি ঘেঁটে দেখা যায়, তাঁর প্রোফাইলে লেখা আছে—লেকচারার অ্যাট লেকচারার ইউনিভার্সিটি, পরিচালক আল নূর ডায়াগনস্টিক কমপ্লেক্স। কিন্তু তিনি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়েই কর্মরত ছিলেন না। এমনকি রাজশাহীর লক্ষ্মীপুরে তাঁর ডায়াগনস্টিক কমপ্লেক্সের কথা বলা হলেও এর কোনো অস্তিত্ব মেলেনি।  

স্থানীয় বাসিতুজ্জামান নামের এক যুবক বলেন, তাঁকে আজিজ কো-অপারেটিভ ব্যাংকে চাকরি দেওয়ার নাম করে ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে তিন লাখ টাকা নেন রনি রাজ। কিন্তু চাকরি দিতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত রাজশাহী নগরীর ২০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলামের কার্যালয়ে সালিস বৈঠকে তাঁকে আটকে রেখে ওই টাকা আদায় করা হয়।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে রনি রাজ হোসেন বলেন, ‘আমি চাকরি দেওয়ার নামে কারো কাছ থেকে টাকা নিইনি। তবে ব্যাবসায়িক কারণে কিছু টাকা নিলেও সেগুলো ফেরত দিয়েছি, এখনো দিচ্ছি। ’

অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে নগরীর বোয়ালিয়া থানার ওসি মাজাহার হোসেন বলেন, ‘রনি একজন প্রতারক। তিনি লোকজনের কাছ থেকে বিভিন্নভাবে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি। ’



সাতদিনের সেরা