kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিএম কলেজে ঠেকনা দিয়ে দেয়াল রক্ষা

বরিশালে দুর্ঘটনার আশঙ্কা

বরিশাল অফিস   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিএম কলেজে ঠেকনা দিয়ে দেয়াল রক্ষা

দেয়াল রক্ষায় দেওয়া হয়েছে ঠেকনা

বৃহস্পতিবার সরকারি বিএম কলেজের বিএম কলেজ অধ্যক্ষের বাসভবনের দেয়ালের একাংশ ভেঙে পড়ে। প্রায় অর্ধশত বছরের পুরনো অধ্যক্ষের বাসভবনের ২০০ ফুট লম্বা ওই দেয়ালটি অনেক আগে থেকেই ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোনো সময় ঝুঁকিপূর্ণ ওই দেয়াল ফের ধসে পড়ে বড় ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছেন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা।

সরকারি বিএম কলেজের অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সানজিদা আক্তার বলেন, ‘আমরা অর্থনীতি বিভাগের ১০-১২ জন শিক্ষার্থী অডিটরিয়ামের পিছন দিকে বসে গ্রুপ ডিসকাশন করছিলাম।

বিজ্ঞাপন

এমন সময় অধ্যক্ষের বাসভবনের ওই দেয়ালটি বিকট শব্দে ভেঙে পড়ে। ভাগ্যক্রমে দুর্ঘটনার কবল থেকে আমরা বেঁচে গেলেও কলেজ কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে নেয়নি কোনো ব্যবস্থা। ’

দুর্ঘটনার পর কলেজের কর্মচারীরা এসে ভাঙা ওই দেয়াল তুলে গাছের সঙ্গে ঠেকনা দিয়ে দেন। শিক্ষার্থীরা বলছেন, যেকোনো সময় ওই দেয়াল পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

কলেজ ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি জাহিদ আব্দুল্লা রাহাত বলেন, ‘ওই দেয়ালটি অর্ধশত বছরের পুরনো হাওয়ায় ভেঙে পড়া স্বাভাবিক। কিন্তু নতুন করে ওই দেয়াল না তুলে গাছের সঙ্গে ঠেকনা দেওয়াটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। ’

বিএম কলেজ শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন সারোয়ার বলেন, ‘কলেজ অধ্যক্ষের বাসভবনের ওই দেয়াল ১৯৬৫ সালের দিকে করা। এখন ওই দেয়াল একেবারে ঝুঁকিপূর্ণ। ’

বিএম কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘দেয়াল ঝুঁকিপূর্ণ একথা সত্য। গাছ দিয়ে দেয়ালটি ঠেকনা দেওয়া হয়েছে। সাবেক অধ্যক্ষের সময় ওই দেয়াল অনেক ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। তিনি শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগকে বিষয়টি জানিয়েছেন। আমিও লিখিত আকারে শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগকে দেয়ালটি করে দেওয়ার জন্য আবেদন করেছি। ’

বএম কলেজ অধ্যক্ষের বাসভবনের দেয়ালের একাংশ ভেঙে পড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘এস্টিমেট করা হয়েছে। আশা করি শিগগিরই কাজ করা যাবে। ’

 

 



সাতদিনের সেরা