kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ছাত্রী হেনস্তার অভিযোগ

বিষয়টি আংশিক সত্য, আংশিক মিথ্যা। শিক্ষকরা শিক্ষার্থীকে হুমকি দিতে পারেন না, শাসন করতে পারেন। ওই ছাত্রীকে পরেরবার ডাকা হয়েছে, কারণ সে বাইরে গিয়ে আরেকটি ছাত্রলীগের ছেলের কাছে বলেছে ,মাহবুবা সিদ্দিকা সহকারী অধ্যাপক

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক সহকারী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে হেনস্তা ও হুমকির অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ওই সহকারী অধ্যাপকের নাম মাহবুবা সিদ্দিকা। শনিবার এ বিষয়ে ছাত্র উপদেষ্টা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী ছাত্রী। পরে ঘটনা অনুসন্ধানে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে হল প্রশাসন।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, গত ২৩ আগস্ট হলের আবাসিকতার জন্য সাক্ষাৎকার দিতে গেলে হেনস্তার শিকার হন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী। লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী ছাত্রী সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমাকে নানাভাবে হেনস্তা করা হয়। কোনো প্রকার সংশ্লিষ্টতা না থাকার পরও আমাকে সরাসরি শিবির বলে আখ্যায়িত করা হয় এবং হুমকি দেওয়া হয়। শঙ্কিত হয়ে বিষয়টি আমার কাছের ছাত্রলীগের ভাইকে জানাই। পরে একজন শিক্ষিকা আমাকে প্রভোস্ট কক্ষে ডেকে নানাভাবে হুমকি দেন। এতে আমি ব্যক্তিগত ও পারিবারিক নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। ’

তবে অভিযুক্ত সহকারী অধ্যাপক মাহবুবা সিদ্দিকা সাংবাদিকদের বলেন ‘বিষয়টি আংশিক সত্য, আংশিক মিথ্যা। শিক্ষকরা শিক্ষার্থীকে হুমকি দিতে পারেন না, শাসন করতে পারেন। ওই ছাত্রীকে পরেরবার ডাকা হয়েছে, কারণ সে বাইরে গিয়ে আরেকটি ছাত্রলীগের ছেলের কাছে বলেছে। আর সে আমার ছাত্রের মারফত আমাকে থ্রেট করেছে। ’

ছাত্রলীগকর্মী সাগর বলেন, ‘ম্যাম আমার বিভাগের শিক্ষিকা। আমি তাঁকে শুধু অনুরোধ করেছিলাম যেন ওই ছাত্রীকে হেনস্তা করা না হয়। ’



সাতদিনের সেরা