kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

নীলফামারীতে সারের ঘাটতি ৩,৮১৮ টন

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৭ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নীলফামারীতে আমন মৌসুমের চলতি আগস্ট মাসে ইউরিয়া সারের চাহিদা ৯ হাজার ২৮১ মেট্রিক টন। এর বিপরীতে বরাদ্দ পাওয়া গেছে পাঁচ হাজার ৪৬৩ মেট্রিক টন। ঘাটতির তিন হাজার ৮১৮ মেট্রিক টন সার দ্রুত বরাদ্দের দাবি জানিয়েছে জেলা ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশন।

ব্যবসায়ীদের দাবি, অন্তত দুই হাজার মেট্রিক টন সার বরাদ্দ দেওয়া না হলে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ঘাটতি হবে আমন আবাদে।

বিজ্ঞাপন

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, গত জুলাই মাসে দুই হাজার ৭৪৩ মেট্রিক টন এবং চলতি মাসের তিন হাজার ৮১৮ মেট্রিক টন ঘাটতিসহ দুই মাসের ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়ায় ছয় হাজার ৫৬১ মেট্রিক টন।

জেলা ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ সরকার জানান, এ বছর খরা চলছে। বৃষ্টির পানিতে আমন আবাদে যে পরিমাণ ইউরিয়া

সারের প্রয়োজন হয়, সেচ দিয়ে সেই আবাদে তার চেয়ে বেশি লাগবে। আর চারা রোপণের ২০ দিন পর থেকে কৃষকরা ক্ষেতে ইউরিয়া প্রয়োগ করেন।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সার প্রয়োগের পিক টাইম চললেও চাহিদার তুলনায় বরাদ্দ কম পাওয়ায় ডিলার পয়েন্টে সারের মজুদ প্রায় শেষের দিকে। এ কারণে আমরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে কৃষি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব বরাবর আরো দুই হাজার মেট্রিক টন ইউরিয়া সার বরাদ্দ চেয়ে আবেদন করেছি। এটি পাওয়া গেলে কৃষকদের চাহিদা অনেকাংশে পূরণ করা সম্ভব হবে। ’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক আবুবক্কর সিদ্দিক বলেন, ‘প্রতিবছর এভাবে বরাদ্দ দেওয়া হয়। এতে সমস্যা হচ্ছে, বাজারে প্রাপ্তি কমে যাচ্ছে। ’



সাতদিনের সেরা