kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঝালকাঠি

যুবককে মারধর চেয়ারম্যানের

ঝালকাঠিতে জোর করে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যান মঈনুদ্দিন পলাশের বিরুদ্ধে

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝালকাঠিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক যুবককে মারধর করে ভয়ভীতি দেখিয়ে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মঈনুদ্দিন পলাশের বিরুদ্ধে। এ সময় নিজ ভিটা ছেড়ে তাঁকে দেশ ত্যাগেরও হুমকি দেওয়া হয়। ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিনয়কাঠি ইউনিয়নের গরঙ্গা গ্রামের মৃত বীরেন চন্দ্র সরকারের ছেলে রতন সরকার এ অভিযোগ করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ঝালকাঠি প্রেস ক্লাবে এ ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী রতন সরকার বলেন, তিনি মা ও ভাইকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে বসবাস করেন। বাড়িটি অত্যন্ত নির্জন স্থানে। গত ৬ আগস্ট দুপুরে বিনয়কাঠি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈনুদ্দিন পলাশ ২০-২৫ জনকে নিয়ে তাঁদের বাড়িতে যান। তাঁরা তাঁকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই চেয়ারম্যানের সঙ্গে থাকা জাহাঙ্গীর ফকির, খোকন মল্লিক, অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য নজরুল ইসলাম, মোবাশ্বেরসহ কয়েকজন তাঁকে মারধর করে। তারা ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর করে একটি সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষরও নেয়। এক পর্যায়ে তাঁদের দেশ ত্যাগের হুমকি দেয় তারা।

এ ঘটনার পর থেকে ভয়ে বাড়িতে যেতে পারছেন না তিনি। শহরের বিভিন্ন এলাকায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাঁর বৃদ্ধ মা ও ভাই বাড়িতে বসবাস করছেন। যেকোনো সময় তাঁর পরিবারের ওপর হামলা হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তিনি।

রতন সরকার আরো বলেন, ‘আমার বাবা মারা যাওয়ার পর ওয়ারিশ সূত্রে পাওয়া ২.৮৩ শতাংশ জমি ২০২১ সালে বিক্রি করি। এর পর থেকেই ওই মহলটি আমাদের ওপর ক্ষিপ্ত ছিল। তারা এখন চাচ্ছে, আমরা যেন এই দেশ ত্যাগ করে যাই। আমি এই ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। ’

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে বিনয়কাঠি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মঈনুদ্দিন পলাশ বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে একটি পক্ষ মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে সম্মানহানি করছে। ’



সাতদিনের সেরা