kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

রেশন কার্ডের নামে টাকা আদায়

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

৬ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রেশন কার্ডের নামে টাকা আদায়

রেশন কার্ড দেওয়ার কথা বলে ‘বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন’ নামের একটি বেসরকারি সংস্থা এলাকার সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ৬০০ টাকা করে আদায় করছে। আর এর বিনিময়ে কিছুসংখ্যক মানুষের হাতে পৌঁছে দিচ্ছে পাঁচ কেজি করে আটা। এ নিয়ে এলাকায় চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নয় স্থানীয় প্রশাসন।

বিজ্ঞাপন

এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চরবেতাগৈর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ভর্তুকি মূল্যে খাদ্যসামগ্রী দেওয়ার জন্য রেশন কার্ড করতে খরচের কথা বলে চরবেতাগৈর ইউনিয়নের বীর খামাটখালী গ্রামের হেলেনা নামের এক নারী শতাধিক নারী-পুরুষের কাছ থেকে ৬০০ টাকা করে আদায় করছেন। সেই সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র ও তিন কপি ছবি নিচ্ছেন। এ অবস্থায় তাঁদের দেওয়া হবে একটি কার্ড, যা থেকে তিন মাস পর পর ভর্তুকি মূল্যে পাবেন সেমাই, চিনি, ডাল, লবণ ও চাল; কিন্তু বাস্তবে কয়েক মাস অতিবাহিত হলে তাগাদার পর কিছুসংখ্যক ব্যক্তিকে দেওয়া হচ্ছে মাত্র পাঁচ কেজি করে আটা।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বীর খামাটখালী গ্রামে গেলে প্রায় ২০ জন নারী-পুরুষ অভিযোগ করে জানান, গত কয়েক মাস আগে থেকে এলাকায় দেওয়া হচ্ছে টিসিবির পণ্য। আর টিসিবির পণ্য নিতে কার্ড সবাই পায়নি। এ অবস্থায় এলাকার হেলেনা নামের এক নারী নিজেকে বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন নামের একটি বেসরকারি সংস্থার মাঠকর্মী পরিচয় দিয়ে সুলভমূল্যে খাদ্যসামগ্রী পাওয়ার জন্য রেশন কার্ড করে দেওয়ার প্রলোভন দেখান। পরে এলাকার অনেকের কাছ থেকেই ৬০০ টাকা করে আদায় করছেন।

বীর খামাটখালী গ্রামের জামালের স্ত্রী নুরুন্নাহার জানান, তাঁর কাছ থেকে কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৬০০ টাকা নেন হেলেনা। এরপর কয়েক মাস চলে গেলেও কোনো কার্ড বা সামগ্রী পাননি।

এ বিষয়ে হেলেনা টাকা উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘খাদ্যসামগ্রী পাওয়ার বিষয়টি তো অফিস জানে। ’

অফিস কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ময়মনসিংহ শহরে। ’ পরে ওই সংস্থার একটি নম্বর নিয়ে ফোন করলে কল ধরেন নুরুন্নবী নামের এক ব্যক্তি।

তিনি ওই সংস্থার সহকারী পরিচালক বলে পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘আমাদের সব কার্যক্রমই ঠিক আছে। ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান, ডিসি-এসপিসহ সব দপ্তরেই কাগজপত্র দেওয়া আছে। ’

কিছুক্ষণ পর ওই সংস্থার সভাপতি পরিচয় দিয়ে আম্বিয়া খাতুন নামের একজন বলেন, ‘আপনি আমার অফিসে আসেন। আমি ব্রাজিল থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। ’

এ ব্যাপারে চরবেতাগৈর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন বলেন, ‘এটা এক ধরনের বাটপারি। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’ নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  আবুল মনসুর বলেন, ‘এ ধরনের কোনো সংস্থার কাগজপত্র আমার দপ্তরে পৌঁছেনি। এটা ভুয়া সংস্থা হতে পারে। লিখিত অভিযোগ পেলেই তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’



সাতদিনের সেরা