kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

মহাসড়ক ঘেঁষে পশুর হাট

বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কের সান্তাহার

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি   

৪ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহাসড়ক ঘেঁষে পশুর হাট

বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহার পৌর শহরের ঐতিহ্যবাহী রাধাকান্ত হাটে গতকাল বিক্রির জন্য সড়ক ঘেঁষে বেঁধে রাখা হচ্ছে গরু। ছবি : কালের কণ্ঠ

আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরে বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কের ফুটপাতের ওপর কোরবানির পশুর হাট বসানো হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে যানবাহনের যাত্রী, চালক ও পথচারীরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাধাকান্ত হাট বসে শনি ও মঙ্গলবার। বছরজুড়ে তালগাছের তীর ও বাঁশ বেচাকেনা হলেও স্বল্প পরিসরে কিছু ছাগল ও ভেড়া বেচাকেনা হয়ে থাকে।

বিজ্ঞাপন

এবার ঈদ উপলক্ষে মহাসড়কের ফুটপাতের ওপর হাটের পশু রাখা হয়েছে।

গত শনিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, গত বছরের চেয়ে এবার হাটের জায়গা সংকট হওয়ায় বাধ্য হয়ে মহাসড়কে কোরবানির পশুর হাট বসিয়ে চলছে বেচাকেনা। হাটের জায়গা ছাড়াও মহাসড়কজুড়ে পশু আর হাটে আসা মানুষের ভিড়। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মহাসড়কের ওপর চলে পশু বেচাকেনা। পশু বহনকারী নছিমন, করিমন, ভটভটি, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন রাখা হয়েছে মহাসড়ক ঘেঁষে। মহাসড়কের ওপরই চলছে পশু বেচাকেনা। এ কারণে মহাসড়কটিতে যানজট তৈরি হচ্ছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়ছে যাত্রীসহ পথচারীরা। ওই এলাকায় দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত যানবাহন চলছে ধীরগতিতে।

ইজারাদার সরকারি বিধি উপেক্ষা করে গবাদি পশু ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ের কাছ থেকে খাজনা আদায় করছেন। সরকারি নিয়মানুযায়ী প্রতিটি হাটবাজারে টোল আদায়ের তালিকা টাঙিয়ে দেওয়ার নিয়ম থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। সরকারিভাবে গরু ৫০ হাজার টাকার বেশি হলে ৫০০ টাকা, ৫০ হাজার টাকার কম হলে ৪০০, ছাগল-ভেড়া ১৫০ টাকা হাসিল আদায় করার কথা। এই হাটে কোরবানির গরু ৭০০ টাকা ও ছাগলপ্রতি ৩০০ টাকা হারে অতিরিক্ত হাসিল আদায় করছেন ইজারাদার। এ ছাড়া বিক্রেতার কাছ থেকেও পশুপ্রতি ন্যূনতম ১০০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। পশু বিক্রি রসিদে গরু বা ছাগলের মূল্য ও আকৃতি লেখা হলেও টাকার পরিমাণ লেখা হচ্ছে না।

গরু বিক্রি করতে আসা সমশের আলী বলেন, ‘পুলিশ সড়কের ওপর গরু কেনাবেচা করতে আমাদের নিষেধ করেছে। কিন্তু জায়গা না থাকায় বাধ্য হয়ে মহাসড়ক ঘেঁষে গরু বেচাকেনা করতে হচ্ছে। ’

ক্রেতা মামুন হোসেন জানান, কোরবানির জন্য ৭৫ হাজার টাকায় একটি ষাঁড় কিনেছেন। তাঁর কাছ থেকে ৭০০ টাকা হাসিল নেওয়া হয়েছে।

নওগাঁ জেলা ট্রাক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি সালাউদ্দীন টিপু বলেন, ‘গাড়ি হাটে না ঢুকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে পারত। ’

রাধাকান্ত হাটের ইজারাদার দিলদার আলম জুয়েল বলেন, ‘হাটের জায়গা সংকট হয়েছে। এ ছাড়া আশপাশের হাটগুলোতে যেমন টোল নেওয়া হচ্ছে, এখানেও তাই নেওয়া হচ্ছে। ’

সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আরিফুল ইসলাম জানান, মহাসড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচলে যেন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয় এ জন্য হাট কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে।

সান্তাহার পৌরসভার প্যানেল মেয়র জার্জিস আলম রতন জানান, ইজারাদারকে সরকারি বিধি অনুযায়ী হাসিল নিতে বলা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শ্রাবণী রায় জানান, সড়কের ওপর হাট বসানো এবং অতিরিক্ত হাসিল নেওয়ার নিয়ম নেই। ফাঁড়ি পুলিশের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 



সাতদিনের সেরা