kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

সালিসের আগেই চেয়ারম্যানের নির্দেশে গাছ কাটল প্রতিপক্ষ

বরিশাল অফিস   

২১ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সালিসের আগেই চেয়ারম্যানের নির্দেশে গাছ কাটল প্রতিপক্ষ

বরিশালের মুলাদী উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপুর এলাকায় বিরোধ মীমাংসা হওয়ার আগেই গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছবি : কালের কণ্ঠ

বরিশালে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নির্দেশে বিরোধ-মীমাংসা হওয়ার আগেই বিরোধপূর্ণ জমির গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৬ জুন বরিশালের মুলাদী উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপুর এলাকায়। এ ঘটনায় মুলাদী থানায় অভিযোগ করেন জমির মালিক সাহিদা বেগম।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান কামরুল আহসানের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করলে তাঁর ভাই এনামুল দাবি করেন জমির প্রকৃত মালিকদের জমি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্যই চেয়ারম্যানের নির্দেশে গাছ কাটা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে বাদী সাহিদা বেগম দাবি করেন, মালিকানাসহ প্রায় ৭০ বছর ধরে ওই জমি ভোগ দখলে রয়েছেন তাঁরা। কিন্তু হঠাৎ করেই তাঁরা ওই জমির মালিকানা দাবি করেন। এরপর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কামরুল আহসানের মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে সালিস বৈঠকের আয়োজন করা হয়। রায় এখনো দেওয়া হয়নি। কিন্তু হঠাৎ করে গত ১৫ জুন ওই জমিতে তাঁরা বেড়া দেওয়া শুরু করেন। পরদিন চেয়ারম্যানের ভাই এনামুলের নেতৃত্বে জমির প্রায় শতাধিক গাছ কাটা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নুরুল আলম খান বলেন, ‘জমির আরএস ও এসএ রেকর্ডীয় মালিক আমরা। সেখান থেকে কিছু অংশের ক্রয়সূত্রে মালিক হয় মজিবুর হাওলাদার গং। কিন্তু তাঁরা বিএস রেকর্ডে অবৈধভাবে বেশি অংশ রেকর্ড করেন। বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন সালিস-মীমাংসা চলছে। তবে মজিবর গং সালিস না মানার কারণে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নির্দেশে আমরা আমাদের জমি দখলে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে পুরনো কিছু গাছ কেটেছি। ’

 



সাতদিনের সেরা