kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জুন ২০২২ । ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৯ জিলকদ ১৪৪৩

ইউপি সদস্যের স্ত্রী-ছেলেও শ্রমিকের তালিকায়

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ

তাড়াশ-রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ৪০ দিনের কর্মসৃজন প্রকল্পে দুই ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে তাঁদের স্ত্রী, ছেলে ও কর্মচারীকে শ্রমিকের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার অভিযোগ উঠেছে। এসব শ্রমিক কাজ না করলেও ঠিকই তাঁদের নামে টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে বলে আরেক ইউপি সদস্য মো. আশরাফ আলী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য সরকার ঘোষিত হতদরিদ্রদের জন্য কর্মসৃজন প্রকল্পের আওতায় সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. মজিবর রহমান ও ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. শামীম হাসান গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারের জন্য চারটি প্রকল্পের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পান। এসব প্রকল্পে ইউপি সদস্য মো. শামীম হাসান তাঁর স্ত্রী মোছা. সাবিনা খাতুনের নাম এবং ইউপি সদস্য মো. মজিবর রহমান তাঁর ভাই মো. আছাব আলী প্রামাণিক, ছেলে মো. আব্দুল লতিফ ও মো. লেখন আলী, গ্রাম আদালতে কর্মরত মো. আনোয়ার হোসেন, ব্যবসায়ী মো. সামাদ আলীর নাম শ্রমিক হিসেবে তালিকাভুক্ত করেন।

বিজ্ঞাপন

অভিযোগ রয়েছে এসব শ্রমিক প্রকল্পের কোনো কাজ না করলেও তাঁদের পারিশ্রমিকের টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী ইউপি সদস্য মো. আলী আশরাফ বলেন, ‘ওরা দুর্নীতি করে টাকা আত্মসাত করে আর দোষ হয় সব ইউনিয়ন পরিষদের। এ কারণে আইনি প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ করেছি। ’

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মো. মজিবর রহমান বলেন, ‘কিছুটা অনিয়ম হয়েছে। বিভিন্ন খরচ লাগে এ জন্য এটা করা হয়েছে। ’

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. নূর মামুন বলেন, ‘তালিকা প্রস্তুত করে ইউনিয়ন পরিষদ। সংগত কারণে যাচাইয়ের সুযোগ কম। অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’



সাতদিনের সেরা