kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ

মনোনয়ন কোন্দলের মধ্যেই সম্মেলন

♦ পুরনো কমিটির বিরুদ্ধে কোন্দলের অভিযোগ একাংশের নেতাদের
♦ ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

১৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মনোনয়ন কোন্দলের মধ্যেই সম্মেলন

সাত বছর পর আজ মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। এই সম্মেলনে মেহেরপুর পৌর নির্বাচনের দলীয় মনোনয়ন নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

সর্বশেষ ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই সম্মেলনে বর্তমান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সভাপতি এবং এম এ খালেক সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

একাংশের নেতাদের অভিযোগ, এ কমিটি দলকে সুসংগঠিত করতে পারেনি; বরং কিভাবে কোন্দল জিইয়ে রাখা যায় তেমন আচরণ করেছে।

নেতাদের অভিযোগ, সর্বশেষ মেহেরপুর সদর উপজেলা, পৌর, মুজিবনগর উপজেলায় অনুসারীদের দিয়ে কমিটি গঠন করেছেন সভাপতি। কমিটিতে তাঁর পরিবারের সদস্যরাও রয়েছেন। এ ছাড়া পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে স্ত্রী মোনালিসাকে দিয়ে দলীয় মনোনয়ন তুলেছিলেন সভাপতি। গত শুক্রবার দল তাঁকে মনোনয়ন দেয়নি। ফলে পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে তিনি নির্বাচন করবেন না, এমন আশঙ্কা করছেন নেতারা।

এ বিষয়ে বর্তমান মেয়র, আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন বলেন, ‘কে আমার পক্ষে কাজ করবেন, কে করবেন না, তা নিয়ে এই মুহূর্তে কিছু বলতে চাই না। বিগত সময়ে পৌরসভার উন্নয়ন কারা বাধাগ্রস্ত করেছেন, তা সবাই জানে। ’

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। উপস্থিত থাকবেন প্রেসিডিয়াম সদস্য বাহাউদ্দিন নাছিম, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, নির্বাহী সদস্য পারভীন জামান কল্পনা, গ্লোরিয়া ঝর্ণাসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা।

মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে ফরহাদ হোসেন ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিয়াজান আলী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মান্নানের নাম শোনা গেছে।

বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক ছাড়াও এ পদে প্রার্থী হিসেবে শোনা যাচ্ছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম, মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আসলাম শিহির ও মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য পত্নী লাইলা আরজুমান বানু।

এ বিষয়ে মিয়াজান আলী অভিযোগ করে বলেন, ‘সম্মেলন ঘিরে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়নি। ’

আব্দুল মান্নান বলেন, ‘প্রতিমন্ত্রী জেলা কমিটিতে আত্মীয়-স্বজন ও পরিবারের ১৭ জন এবং বিএনপি-জামায়াতের ছয়জনকে অন্তর্ভুক্ত করেছেন। ’

সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম বলেন, ‘সাত বছরে এই কমিটি দুটি সভা করেছে। কিন্তু সেখানে কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। ’

তবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেক বলেন, ‘সম্মেলনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। ’



সাতদিনের সেরা