kalerkantho

রবিবার । ২৬ জুন ২০২২ । ১২ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৫ জিলকদ ১৪৪৩

বশেমুরবিপ্রবিতে যৌন হয়রানির অভিযোগ

কৃষি বিভাগের সভাপতিকে অব্যাহতি

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৬ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) কৃষি বিভাগের সভাপতির পদ থেকে এক শিক্ষককে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। গত ২৩ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের করা নৈতিক স্খলনসহ নানা অভিযোগের ভিত্তিতে গতকাল মঙ্গলবার এই আদেশ দেওয়া হয়।

সম্প্রতি কৃষি বিভাগের সভাপতির ফোনালাপের একটি অডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে তিনি একাধিকবার ওই ছাত্রীর সঙ্গে একাকী সময় কাটানোর জন্য জোর করতে থাকেন।

বিজ্ঞাপন

ছাত্রী বারবার অসম্মতি জানালে তিনি ভয়ভীতি দেখান। তা ছাড়া ছাত্রীকে পরীক্ষার আগে প্রশ্ন দেওয়াসহ নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার কথা উঠে আসে ফোনালাপে।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস, নম্বরপত্র গরমিল, উত্তরপত্রে ইচ্ছামাফিক নম্বর বসানো, শিক্ষা সফরের অনুদান ও হিসাব-নিকাশে অস্বচ্ছতা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দেন বিভাগীয় প্রধান।

উল্লেখ্য, অভিযুক্ত শিক্ষক হিসেবে যোগদানের আগে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সহকারী ছিলেন। প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকায় কর্মচারী থেকে কৃষি বিভাগের শিক্ষক আর সেই সুবাদে বিভাগের সভাপতির দায়িত্ব পান।

গতকাল ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. মোরাদ হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে কৃষি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. মোজাহার আলীকে বিভাগের সভাপতির অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মোরাদ হোসেন জানান, তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। প্রতিবেদনের পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে প্রক্টর ড. রাজিউর রহমান বলেন, ‘ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলন, অর্থ আত্মসাৎসহ নানা রকম অভিযোগ উঠেছে। এসব অভিযোগ তদন্তের স্বার্থে তাঁকে বিভাগীয় সভাপতির পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। ’

অভিযুক্ত শিক্ষক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এগুলো সম্পূর্ণ বানোয়াট। ভাইরাল হওয়া অডিওর কণ্ঠ আমার না। ’



সাতদিনের সেরা