kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

সদস্য প্রার্থীর ভাতিজা গুলিবিদ্ধ

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি   

২১ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সদস্য প্রার্থীর ভাতিজা গুলিবিদ্ধ

হযরত আলীর পেটে গুলির ক্ষত

ষষ্ঠ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে এক ইউপি সদস্য প্রার্থীর বাড়িতে হামলা চালিয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নুরুল ইসলাম ও তাঁর সমর্থকরা। এ সময় ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরুর ভাতিজা হযরত আলী (৪০) গুলিবিদ্ধ হন। এ ছাড়া আহত হন আরো চারজন। গত বুধবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের নলসন্ধ্যা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পিংনা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরু মোরগ ও নুরুল ইসলাম ফুটবল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচন নিয়ে শত্রুতার জেরে গত বুধবার গভীর রাতে ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরুর বাড়িতে হামলা চালায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নুরুল ইসলাম ও তাঁর লোকজন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষ চলাকালে সুরুজ্জামানের ভাতিজা হযরত আলী গুলিবিদ্ধ হওয়াসহ আহত হয় আরো চারজন। গুরুতর আহত অবস্থায় হযরত আলীকে প্রথমে সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অন্যদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পর থেকে নুরুল ইসলাম ও তাঁর লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে।

এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্বরত চিকিৎসক দেবাশীষ রাজবংশী বলেন, ‘শটগানের গুলিতে বিদ্ধ হযরত আলীকে ভোরের দিকে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর পেটের এক পাশে গুলি লেগেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পরও অবস্থার অবনতি হওয়ায় দ্রুত তাঁকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। ’

জানতে চাইলে ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরু অভিযোগ করে বলেন, গত বুধবার গভীর রাতে প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম লোকজন নিয়ে অতর্কিতভাবে তাঁর বাড়িতে হামলা চালান। এতে বাধা দেয় তাঁর পক্ষের লোকজন। এ সময় প্রতিপক্ষের গুলিতে তাঁর ভাতিজা হযরত আলী গুলিবিদ্ধ হন। এ ছাড়া আরো চারজন আহত হয়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য প্রার্থী নুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সুরুজ্জামান দুষ্ট প্রকৃতির একজন লোক। ইতিপূর্বে তাঁর সহযোগিতায় নরপাড়ায় দুটি হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। সাধারণ ভোটাররা তাঁকে ভোট দেবেন না, তা বুঝতে পেরে নিজেরাই গণ্ডগোল করেছেন। এ ঘটনার সঙ্গে আমি মোটেও জড়িত নই। ’

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাকসুদ আলম জানান, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ করেনি। তার পরও বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ওই ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বলা হয়েছে। তিনি সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেবেন।

তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপপরিদর্শক আব্দুল লতিফ বলেন, নির্বাচনী প্রচার নিয়ে ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরু ও নুরুল ইসলামের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে একজন গুলিবিদ্ধ হন। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।



সাতদিনের সেরা