kalerkantho

বুধবার ।  ১৮ মে ২০২২ । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩  

রংপুরে মামলার তদন্তে ধীরগতি

নেই ফরেনসিক ল্যাবরেটরি

রংপুর অফিস   

১৮ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রংপুরে ফরেনসিক ল্যাবরেটরি না থাকায় মৃতদেহের ভিসেরা পরীক্ষা করা যায় না। এটি পরীক্ষার জন্য রাজশাহীতে পাঠানো হয়। প্রতিবেদন পেতে দেরি হওয়ায় ব্যাহত হয় মামলার তদন্ত কার্যক্রম।

স্থানীয় সূত্র জানায়, রংপুরকে প্রশাসনিক বিভাগ করা হয় ২০১০ সালের ২৫ জানুয়ারি।

বিজ্ঞাপন

এত দিনেও কোনো ফরেনসিক ল্যাবরেটরি তৈরি করা যায়নি। এখান থেকে প্রতি মাসেই নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী পাঠানো হয়। প্রতিবেদন আসতে দেড় মাস পর্যন্ত সময় লাগে। বর্তমানে প্রায় ২৫টি নমুনা রাজশাহীতে পাঠানো আছে।

এ বিষয়ে রংপুর মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. রাজিবুল ইসলাম জানান, ভিসেরা রিপোর্টের জন্য তাঁদের রাজশাহী ফরেনসিক বিভাগের ল্যাবরেটরির ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। ভিসেরা পরীক্ষার বিষয়টি অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) দেখাশোনা করে। তারাই এগুলো পরীক্ষার জন্য ফরেনসিক বিভাগে পাঠায়। রংপুরে এই ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হলে এ বিভাগের মানুষের উপকার হবে। সিআইডি ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে ভিসেরা নিয়ে পরীক্ষা করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ সূত্রে জানা যায়, রংপুরে ফরেনসিক ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হলে রাসায়নিক, ব্যালিস্টিকস, হস্তলিপি, ফিঙ্গারপ্রিন্ট, অণুবীক্ষণ, ফুটপ্রিন্ট ও জাল নোট শনাক্ত করা যাবে। এর মধ্যে রাসায়নিক পরীক্ষাগারে ভিসেরা, নারকোটিক ও এসিড টেস্টসহ আরো কয়েকটি আইটেম পরীক্ষা করা যাবে। সংগৃহীত ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্বয়ংক্রিয় আঙুলের ছাপ শনাক্তকরণ পদ্ধতির (এএফআইএস) ডাটাবেইসে তল্লাশি করে অপরাধীদের মিল বা অমিল খুঁজে বের করা সম্ভব।



সাতদিনের সেরা