kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সখীপুর পোস্ট অফিসে হয়রানির শিকার গ্রাহক

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গাইলের সখীপুর পোস্ট অফিসে সঞ্চয়পত্রের টাকা উত্তোলনে গ্রাহক ভোগান্তি দিনে দিনে বাড়ছে। পোস্টমাস্টারের অসৌজন্যমূলক আচরণেও ক্ষুব্ধ-বিরক্ত অনেক গ্রাহক। গত কয়েক দিনে বেশ কয়েকজন সঞ্চয়পত্র গ্রাহকের সঙ্গে কথা বলে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। কয়েকজন গ্রাহক পোস্টমাস্টার জেনারেল কেন্দ্রীয় সার্কেল বরাবর লিখিত অভিযোগও করেছেন।

বিজ্ঞাপন

তবে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, ‘এ বিষয়ে বেশ কয়েকজন মৌখিক অভিযোগ করেছেন। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

প্রায় তিন মাস আগে সখীপুর পোস্ট অফিসে দেলোয়ার হোসেন পোস্টমাস্টার হিসেবে যোগ দেন। এর পর থেকেই সঞ্চয়পত্রের মুনাফা ও মেয়াদ শেষ (ম্যাচিউর) হওয়ার পর আসল টাকা উত্তোলনে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে গ্রাহকদের। নিয়মবহির্ভূতভাবে মুনাফা থেকে টাকা কেটে রাখা হচ্ছে। এ ছাড়া মেয়াদ শেষে আসল টাকা উত্তোলনেও প্রত্যেক গ্রাহকের কাছ থেকে দুই থেকে চার হাজার টাকা করে রেখে দেওয়া হচ্ছে।

পার্শ্ববর্তী মির্জাপুর উপজেলার বংশীনগর এলাকার রওশন আরা জানান, সখীপুর উপজেলা পোস্ট অফিসে তাঁর তিন বছর মেয়াদি ১৫ লাখ টাকার একটি সঞ্চয়পত্রের মেয়াদ শেষ (ম্যাচিউর) হয়েছে। দুই মাস আগে টাকা উত্তোলনের জন্য বই জমা দিয়েছিলেন। পোস্টমাস্টার প্রথমে দুই হাজার, পরে টাকার অঙ্ক বেশি বলে চার হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় টাঙ্গাইল পোস্ট অফিস থেকে বই নিয়ে আসতে হবে বলে জানান। পরে বইয়ের জন্য টাঙ্গাইল গিয়ে জানা যায়, ওই বইটি বেশ কয়েক দিন আগেই সখীপুরের পোস্টমাস্টার নিজে সই করে নিয়ে এসেছেন। রওশন আরা আরো জানান, টাকার জন্য সখীপুর পোস্ট অফিসে গেলে পোস্টমাস্টার তাঁকে নানাভাবে কটূক্তি করেন।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের ডেপুটি পোস্টমাস্টার মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘সখীপুর পোস্টমাস্টারের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকজন মৌখিকভাবে অভিযোগ জানিয়েছেন। এরই মধ্যে ওই পোস্টমাস্টারকে ডেকে এনে এ বিষয়ে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। ’

অভিযুক্ত পোস্টমাস্টার দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ সত্য নয়। সারা দেশের পোস্ট অফিসগুলোতেই টাকার সংকট রয়েছে। প্রতিদিন অনেক লোক এসে টাকার জন্য ভিড় করেন। অনেককেই সময়মতো টাকা দিতে পারি না। সময়মতো টাকা না পেয়ে কেউ হয়তো আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। ’



সাতদিনের সেরা